সিরাজগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

  

পিএনএস ডেস্ক : গত ২৪ ঘন্টায় সিরাজগঞ্জ জেলা সদর, কাজিপুর ও শাহজাদপুর উপজেলার বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে।

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার ছোনগাছা ইউনিয়নের শিমলা এলাকাা স্পার বাঁধের ৭০ মিটার এলাকা বুধবার রাত ১০টার দিকে যমুনা নদীর প্রবল স্রোতে ধসে গেছে। এ কারনে বাধ অভ্যন্তরের পাচঠাকুরী এলাকার প্রায় ৫০টি বসতবাড়ি নদীতে বিলীনের আশংকায় অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

ছোনগাছা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শহিদুল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, এ ধস এখনও অব্যাহত রয়েছে। ধস ঠেকাতে সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড এখনও কোন ব্যবস্থা নেয়নি। ফলে ইতোমধ্যে পাচঠাকুরী এলাকার প্রায় ৫০টি বসতবাড়ি নদীতে চলে যাওয়ার আশংকায় অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। এ বাধ ধসের কারণে এসব এলাকার মানুষের মধ্যে আতংক দেখা দিয়েছে।

এ বিষয়ে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সরকার অসিম কুমার জানান, ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে ত্রাণ সহায়তা দেওয়া হয়েছে। ২০০০-২০০১ অর্থ বছরে এ এলাকার ভাঙ্গণ রোধে শিমলা এলাকায় স্পার বাঁধটি নির্মাণ করা হয়। এরপর বেশ কয়েকবার স্পারটি সংস্কারও করা হয়েছে। চলতি বছরের ৩০ মে যমুনা নদীতে পানি বৃদ্ধির কারণে স্পার বাঁধের স্যাংক (স্পারের মাটির অংশ) প্রায় ২১ মিটার ধসে গিয়েছিল। সেখানে বালির জিওব্যাগ দিয়ে সংস্কার করা হয়। এ অবস্থায় বুধবার রাতে পূর্বের সংস্কার করা স্থানসহ আরও ৭০ মিটার বাধ ধসে যায়।

এ বিষয়ে সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী একেএম রফিকুল ইসলাম জানান, সম্প্রতি সংস্কার করা স্থানসহ বাঁধের প্রায় ৭০মিটার নদীতে ধসে গেছে। আমরা ধসে যাওয়া স্থানে জিওব্যাগ ফেলে সংস্কারের উদ্দ্যোগ নিয়েছি। দ্রুত সময়ের মধ্যে এর কাজ শুরু করা হবে।

এ দিকে শাহজাদপুর উপজেলার বন্যা পরিস্থির আরো অবনতি হয়েছে। ইতোমধ্যেই বন্যার পানিতে ডুবে গেছে,কৈজুরি,জালালপুর,খুকনি,সোনাতনী,গালা ও রূপবাটি ইউনিয়নের অন্তত ২০টি গ্রাম।
এ বিষয়ে শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মো. শামসুজ্জোহা বলেন, এ বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পিএনএস/এসআইআর

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন