ডিমলায় আওয়ামী লীগ নেতাকে মারধর, আটক ৪

  

পিএনএস, ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি : তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতিকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার খালিশা চপানী ইউনিয়নের ডালিয়া নতুন বাজারে। রবিবার (৪-এপ্রিল) সকাল ১১ টার দিকে ঘটনাটি ঘটে।

জানা গেছে, উক্ত ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগ সভাপতি পল্লী চিকিৎসক ডাঃ মোঃ শফিকুল ইসলাম একই এলাকার প্রতিবেশি নানা-নাতী সম্পর্কে লিখন ইসলামের সাথে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে কথা-বার্তার এক পর্যায়ে দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনায় রূপ নেয়। সেখানে অবস্থানরত থাকা একই এলাকার মহুবার রহমানের ছেলে রাকিবুল ইসলাম ঐ ঘটনায় পূর্ব শত্রুতার যের ধরে ডাক্তারের সাথে ঝগড়ায় লিপ্ত হয়ে এক পর্যায়ে উভয়ের মাঝে বাগবিতন্ড শুরু হলে উপস্থিত লোকদের তা থামিয়ে দেয়। এর পরের দিন (৫-এপ্রিল) রাকিবুল ইসলাম তার ছোট ভাই ওমর ফারুক(২৪), মহুবার রহমান(৫২) পিতা- অজ্ঞত, দক্ষিন গয়াবাড়ি ইউনিয়ন ৩ নং ওয়ার্ডের মহুবার রহমানের ছেলে রবিউল ইসলাম(২২), একই ইউনিয়ন ৪নং ওয়ার্ডের মতিয়ার রহমানের ছেলে জহুরুল ইসলাম(২০), আজিজুল ইসলামের ছেলে মঞ্জুরুল ইসলাম(৩০), কে ভাড়া করে লাঠি ছোড়া, লোহার রড ইত্যাদি দ্বারা দিন দুপুরে ডাক্তার কে তার দোকানে আটক করে গালমন্দ করে। এর এক পর্যায়ে মহুবার রহমান(৫২) হুকুম দিলে রাকিবুল ইসলাম দোকানের ভিতরে গিয়ে তাকে বের করে এনে ওমর ফারুম লোহার রড দিয়ে এবং রবিউল ইসলাম, জহুরুল ইসলাম, মঞ্জুরুল ইসলামসহ সকলে মিলে ফিল্মি স্টাইলে মারধর এবং শ্বাসরোধ করার চেস্টা করে। এতে ডাক্তারে বুকে, পিটে, ডান হাতের কবজির উপরে ও বাম হতের কাধে সর্বশরীরে বেদন ভাবে মার ও গুরুতর জখম করে।

অভিযোগ কারী বলেন, এই পাষন্ডরা মারধর করে ক্ষান্ত নয়, তারা দোকানের ক্যাশবাক্সে থাকা ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা এবং দোকানে থাকা বিভিন্ন কোম্পানি ওষুধের ফাইল, ট্যাবলেট সহ দোকান ভাংচুর করেন যার আনুমানিক মূল্য ৮০ হাজার টাকা। ডাক্তারের উপর এই অমানুবিক নির্যাতনের দৃশ্য দেখার পর বাজারের লোকজন ছুটে আসলে তাকে উদ্ধার করেন এবং দুস্কৃতদের ধৃত করে ৪ জনকে আটক করেন। এর পর স্থানীয় চেয়ারম্যান, মেম্বারকে অবগত করে ডিমলা মেডিকেল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

৬ এপ্রিল ডিমলা থানায় তাদের বিরুদ্ধে ডাঃ মোঃ শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলা করেন। যার মামলা নং-৬।

মামলার সত্যতা নিশ্চত করে ওসি মফিজ উদ্দিন শেখ বলেন, আটককৃত আসামীদের জেলা হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে আর বাকী আসামীদের ধরার প্রক্রিয়া চলছে।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন