‘নাগরীকদের মর্যদাশীল আসনে বসানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী কাজ করে যাচ্ছে’

  

পিএনএস, বরিশাল প্রতিনিধি : বরিশাল সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ বলেছেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী এদেশের সিনিয়র সিটিজেন নাগরীকদের মর্যদাশীল আসনে বসানোর জন্য দিন-রাত নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে আপনার তার জন্য দোয়া করবেন। প্রধানমন্ত্রী মনে করেছেন এদেশের সকল জনগোষ্ঠিকে পিছিয়ে রেখে দেশ উন্নয়ন করা সম্ভব নয় তাই তিনি বয়স্ক ভাতা চালু করেছেন। এদেশে কে কার কথা ভাবে একজন সন্তান তার পরিবারের খবর রাখে না। সেখানে প্রধানমন্ত্রী সর্বক্ষন তার নাগরীকদের কথা ভাবেন। যে যাই কথা বলুক প্রধানমন্ত্রীকে আমাদের প্রধান মন্ত্রী। এদেশে এত ভাতা দিচ্ছেন যা কখনো কেহ ভাবে নাই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বাংলাদেশে সিটিজেন নাগরীকরা আর অবহেলিত থাকবে না।

তিনি আরো বলেন, প্রবীনদের দেশের সন্মানিত ব্যক্তি হিসেবে উল্লেখ করে তাঁদের চিকিৎসার জন্য সিটি কর্পোরেশন থেকে সম্ভব সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন। তিনি আরো বলেন, জনগনের টাকায় নগর ভবনের কর্মকর্তা কর্মচারী বেতন প্রদান করা হয়। কোন কর্মচারী সেবা প্রদান না করে কাউকে কোন হয়রানী করলে সেই কর্মচারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। কর্পোরেশনের কেউ কারো সাথে খারাপ ব্যবহার করতে পারবেনা। কর্মকর্তা ও কর্মচারী এখনো যারা ভালো হননি তাদের বলছি পরিবর্তন হউন, স্বভাব পাল্টান। আমার চাওয়া পাওয়ার কিছু নাই। আমি পরিবারের সাথে সময় দেইনা। জনগনের বাইরে আমার কোন সংসার নাই। আমি সকলকে সাথে নিয়ে সুন্দর আগামীর বরিশাল গড়তে চাই। গতকাল সোমবার দুপুরে সিটি কর্পোরেশন চত্বরে বরিশাল সিটি কর্পোরেশন ও বরিশাল সমাজসেবা অধিদপ্তরের আয়োজনে সমাজসেবা অধিদপ্তরাধীন শহর সমাজসেবা কার্যক্রমের আওতায় ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের নগরীর ৩,৪,৫,৬,৭,৮,৯,ও ১০ নং ওয়ার্ড সহ ৮টি ওয়ার্ডের বয়স্ক ভাতাভোগীদের মাঝে বিসিসি’ অর্থায়নে ফ্রি টেকসই ভাতা বই বিতরন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এক কথা বলেন।

বিসিসি প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ইসরাইল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে আরো বক্তব্য দেন বরিশাল সমাজসেবা উপ-পরিচালক আল-মামুন তালুকদার। এসময় আরো বক্তব্য রাখেন কাউন্সিলর তৌহিদুল ইসলাম বাদশা, কাউন্সিলর এ.টি.এম শহিদুল্লাহ কবীর, সংরক্ষিত কাউন্সিলর কহিনুর বেগম, মিনু রহমান। এখানে আরো উপস্থিত ছিলেন বিসিসি প্যানেল মেয়র গাজী নঈমুল হোসেন লিটু, এ্যাড, রফিকুল ইসলাম খোকন ও আয়সা তৌহিদা লুনা, কাউন্সিলর কেফায়েত হোসেন রনি, কাউন্সিলর জামাল হোসেন, সংরক্ষিত কাউন্সিলর জাহানারা বেগম। মেয়র এসময় আরো ৭৫ সালের ১৫ আগস্টের কথা স্বরন করে বলেন আজকে অপনারা আমাকে মেয়রের আসনে বসিয়েছেন এখানে আজ আমার থাকার কথা না। আমার স্থান হত কবরে নতুবা পোষ্টারে সেদিন আমি দেড় বছরের সাদিক মায়ের কোলে ছিলাম আমার মা ৫ টি বুলেট বিদ্ব হন ভাগ্যক্রমে মায়ের কোলে থাকা অবস্থায় আমাকে আল্লাহ পাক বাছিয়ে রেখেছে আজকে আপনাদের সেবা করার জন্য। তাই আমার নগরের কোন সিটিজেন নাগরীক আর অবহেলিত থাকবে না। তিনি আরো বলেন আমি বিসিসিতে কারো চাকুরী খাইতে আসি নাই যিনি যে যদি দায়ীত্বে আছেন তারা সঠিকভাবে দায়ীত্ব পালন করার জন্য তাদের প্রতি আহবান জানান। আমাকে একটু সময় দেন নগরের যে সকল সমস্যা রয়েছে তা অচিরেই পুরন করা হবে। ভাতা বই বিতরন অনুষ্ঠানে নগরীর ৮টি ওয়ার্ডের ৬ শত ১ জনকে ৩৬ লক্ষ ৬ হাজার টাকা ভাতা দেওয়া হয় যা ব্যাংক থেকে উত্তোলন করতে পারবে।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech