পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছে পাঁচটি গ্রহাণু, নাসার সতর্কতা

  

পিএনএস ডেস্ক : বুধ কিংবা বৃহস্পতিবারের মধ্যে ছোট থেকে মাঝারি আকারের অন্তত ৫টি গ্রহাণু ঢুকে পড়তে চলেছে পৃথিবীর কক্ষপথে। আকারে এটি একটা বোয়িং-৭৪৭ বিমানের মতো।

মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা এই খবর জানিয়ে সতর্ক করে দিয়েছে। নাসা জানায়, সপ্তাহদুয়েক আগেই পৃথিবীর একেবারে কাছ ঘেঁষে গিয়েছিল একটি স্কুলভ্যানের আকারের গ্রহাণু (‘অ্যাস্টারয়েড’)। তবে গ্রহাণু ‘২০২০ আরকে-২’ আগেরটার মতো অতটা কাছে ঘেঁষবে না।

গত ২৪ সেপ্টেম্বর পৃথিবীর কান ঘেঁষে বেরিয়ে যাওয়ার সময় গ্রহাণুটি ভূপৃষ্ঠ থেকে ছিল মাত্র ১৩ হাজার মাইল উপরে (যখন সবচেয়ে কাছে এসেছিল)।

নাসা জানিয়েছে, পৃথিবীর সবচেয়ে কাছে আসার সময় আগামী কাল গ্রহাণু ২০২০ আরকে-২ ভূপৃষ্ঠ থেকে থাকবে ২৩ লক্ষ ৮০ হাজার মাইল দূরে।

তাই এই গ্রহাণুটি আমাদের খুব একটা উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়াবে না বলেই মনে করছেন বিজ্ঞানীরা। গত মাসেই এই গ্রহাণুটির প্রথম হদিশ মিলেছিল।

গ্রহাণুগুলি সাধারণত থাকে মঙ্গল আর বৃহস্পতির মাঝখানে থাকা গ্রহাণুপুঞ্জ বা ‘অ্যাস্টারয়েড বেল্ট’-এ। সূর্যকে প্রদক্ষিণের সময় তাদেরই কেই কেউ পৃথিবীর খুব কাছে এসে পড়ে। এ ছাড়াও বহু গ্রহাণু রয়েছে পৃথিবীর কাছেপিঠেই। এদের বলা হয় ‘নিয়ার-আর্থ অবজেক্টস (এনইও)’। এদের বেশির ভাগেরই হদিশ মিলেছে খুব সম্প্রতি।

বিজ্ঞানীরা মনে করেন, এই গ্রহাণুগুলির বেশির ভাগেরই জন্ম হয়েছিল সৌরমণ্ডল সৃষ্টির সময়েই। তাই এদের বুকেই লেখা রয়েছে সৌরমণ্ডলের জন্মের ইতিহাস।

নাসা জানিয়েছে, খুব কড়া নজর রাখা হচ্ছে গ্রহাণু ২০২০ আরকে-২’র উপর। কক্ষপথ আচমকা বদলিয়ে তা পৃথিবীর আরও বেশি কাছে চলে আসে কি না তা বোঝার চেষ্টা চলছে।

বুধবার যে গ্রহাণুটি পৃথিবীর কক্ষপথে ঢুকছে, নাসা জানিয়েছে, চওড়ায় সেটি ১১৮ থেকে ২৬৫ ফুটের মধ্যে। তার মানে, একটা বোয়িং-৭৪৭ বিমানের মতো। এর গতিবেগ এখন সেকেন্ডে ৬.৬৮ কিলোমিটার। সবচেয়ে কাছে আসার সময়েও গ্রহাণুটি পৃথিবীর এত দূরের কক্ষপথে থাকার কথা যে তাকে খালি চোখে দেখা অসম্ভব।

নাসা জানিয়েছে, গতকালই একটি ছোট আকারের গ্রহাণু পৃথিবীর কাছ দিয়ে বেরিয়ে গিয়েছে। তার নাম- ‘২০২০ আরআর-২’। যার ব্যাস ছিল ২৬ মিটার। সেটি সোমবার পৃথিবী থেকে ৬২ লক্ষ কিলোমিটার দূর দিয়ে বেরিয়ে গিয়েছে।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন