কোহলিকে সেরা বানানোর পিছে মুশফিকেরও অবদান আছে!

  

পিএনএস ডেস্ক:রান তাড়া করায় বতমান বিশ্ব ক্রিকেটের সেরা ব্যাটসম্যান কে? এ প্রশ্নের উত্তরে এখন সবাই একমত হবেন, বিরাট কোহলি। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে রান তাড়া করার বিষয়টি ছেলে খেলা বানিয়ে ফেলেছেন ভারতের অধিনায়ক।সোমবার (১৮ মে) তামিমের সঙ্গে ফেসবুক আড্ডায় নিজের রহস্য জানিয়েছেন এই সময়ের সেরা ব্যাটসম্যান।

লাইভের মাঝপথে এসে কোহলির কাছে প্রশ্ন রেখেছেন তামিম, রান তাড়া করার সময় লক্ষ্য কীভাবে স্থির করেন কোহলি? মানসিকভাবে কীভাবে প্রস্তুতি নেন? প্রাথমিক জবাবটা চমকে দিতে পারে যে কাউকে, 'মানসিক প্রস্তুতি খুবই সোজা। মাঝে মাঝে তো মুশফিকই সাহায্য করে। স্টাম্পের পেছন থেকে কিছু একটা বলে বসে। তাতে আমি বাড়তি অনুপ্রাণিত হয়ে পড়ি।'

রসিকতার পর্ব শেষ করেই সিরিয়াস হয়ে গেলেন কোহলি। জানালেন রান তাড়া করার এমন ক্ষমতার পেছনে দুটি বিষয় কাজ করছে, আত্মবিশ্বাস ও ছোটবেলার প্রেরণা, 'ছোটবেলা থেকেই মানসিকতা গড়ে নিয়েছি। তরুণদেরও বলি, এই বিশ্বাস রাখতে হবে “আমি পারব।ছোটবেলায় যখন টিভিতে ম্যাচ দেখতাম, তখন ভারত যদি রান তাড়া করতে গিয়ে কোনো ম্যাচ হারত আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করতাম যে আমি থাকলে ঠিকই জিতে ফিরতাম। রাতে এই বিশ্বাস নিয়েই ঘুমাতে যেতাম। সত্যি বলছি, একদম ছোটবেলা থেকেই এ স্বপ্ন দেখতাম।

ছোটবেলা থেকে নিজের ওপর বিশ্বাস রাখার এই যে অভ্যাস এটাই কোহলিকে বদলে দিয়েছে। ফলে রান তাড়া করার অসীম চাপে যেখানে অনেক ব্যাটসম্যানই ভেঙে পড়েন, কোহলি সে চাপ অনায়াসে জয় করেন, যখনই এ ধরণের কোনো পরিস্থিতিতে পড়ি, ওই আনন্দটা বেড়িয়ে আসে আমার মাঝে। ওই যে বিশ্বাস যে ইচ্ছা, আমি পারব সেই অনুভূতিটা আবারও ফিরে আসে। আমার মনে হয়, রান তাড়া করা এমন একটা পরিস্থিতি যখন আপনি জানেন ঠিক কত রান করতে হবে এবং এ জন্য আপনাকে কী কী করতে হবে।

আমার মতে এর চেয়ে পরিস্কার সমীকরণ আর হতে পারে না। আপনি কোন পরিস্থিতি কীভাবে দেখছেন, সেটা আপনার ইচ্ছা। আমি এসব পরিস্থিতিকে কখনো চাপ হিসেবে দেখি না, বরং সুযোগ হিসেবে দেখি। আমার জন্য জেতা সবচেয়ে জরুরি, জেতার জন্যই তো দল মাঠে নামে। এটাই তো সুযোগ যেখানে আমি অপরাজিত থেকে ফিরতে পারব। ফলে আমার কাছে এর চেয়ে নিশ্চিত কোনো পরিস্থিতি নেই, যেখানে আমি দলের জয় দেখতে পাই।

তামিম এর আগে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের পঞ্চপাণ্ডবের মধ্যে সাকিব ছাড়া মাশরাফি, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহকে নিয়ে আড্ডায় মেতেছেন। জুনিয়রদের মধ্যে তাসকিন ও রুবেলকে নিয়ে করেছেন আরেকটি লাইভ সেশন।

এরপরে লাইভে ছিলেন বাংলাদেশের সাবেক তিন ক্রিকেটার ও বর্তমান বোর্ড পরিচালক নাঈমুর রহমান দূর্জয়, হাবিবুল বাশার সুমন ও খালেদ মাহমুদ সুজন। এর পরের দুটি পর্বে তামিমের আড্ডায় যুক্ত হয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটার ফাফ ডু প্লেসি ও ভারতীয় ওপেনার রোহিত শর্মা।

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন