আওয়ামী লীগ-বিএনপি কি এক পাল্লায়? - পাঠকের চিঠি - Premier News Syndicate Limited (PNS)

আওয়ামী লীগ-বিএনপি কি এক পাল্লায়?

  

পিএনএস (মহিউদ্দিন আহমদ) : আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা গেছে, দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনা ৩০ জানুয়ারি সিলেটে যাবেন, জনসভা করবেন এবং হজরত শাহজালাল (র.)–এর মাজার জিয়ারত করে আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনী প্রচার শুরু করবেন। জাতীয় সংসদ নির্বাচন এখন দরজায় কড়া নাড়ছে। সবকিছু ঠিকঠাক চললে সামনের ডিসেম্বরের কোনো একদিন মাহেন্দ্রক্ষণটি আসবে।

নির্বাচনের প্রচার নানান কৌশলে চলছে অনেক দিন ধরেই। আওয়ামী লীগ সরকারে আছে টানা নয় বছর। এই কয় বছরে দেশে অনেক উন্নয়ন হয়েছে। প্রবৃদ্ধির পারদ ওপরে উঠেছে, মানুষের আয়রোজগারও বেড়েছে। এসব দেখিয়ে আওয়ামী লীগের নেতারা সব সময়ই বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে উন্নয়ন হয়।

এ দেশের রাজনীতিতে আওয়ামী লীগের প্রধান প্রতিপক্ষ হলো বিএনপি। দলটি ক্ষমতার বৃত্ত থেকে ছিটকে পড়েছে ১১ বছর আগে। চার বছর ধরে তারা সংসদে নেই। তার আগের মেয়াদে বিএনপির নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকার দৃশ্যমান উন্নয়ন তেমন করতে পারেনি বলে বিরোধীদের অভিযোগ আছে। যদিও বা কিছু করে থাকে, তা এখন অতীত। মানুষ তো সুদূর অতীত মনে রাখে না, নিকট অতীতই স্মৃতিতে তাজা থাকে। তাই বলা যায়, বিএনপি বেশ অসুবিধায় আছে। তারা মানুষকে দেখাতে ও বোঝাতে পারছে না, ক্ষমতায় থাকলে তারাও উন্নয়নের জোয়ার বইয়ে দিতে পারত।

গণমাধ্যমে ক্ষমতাসীন দলের প্রভাব লক্ষণীয়। ফলে প্রচারণায় আওয়ামী লীগ অনেক এগিয়ে। বিএনপির নেতারা তো আদালতে হাজিরা দিতে দিতেই মাস-বছর পার করে দিচ্ছেন। প্রচারের সময় কই? তারপরও তাঁরা প্রচার পাচ্ছেন। এ কাজটা স্বেচ্ছাসেবকের মতো করে দিচ্ছে আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগের নেতারা কোথাও বক্তৃতা দিলে ৯০ শতাংশ সময় বিএনপিকে নিয়েই কথা বলেন। বিএনপি সম্পর্কে ভালো কথা তাঁরা বলেন না। গালাগাল এবং শ্লেষই থাকে বেশি। তো এটা একটা সাধারণ ধারণা যে আপনার প্রতিপক্ষ যদি আপনার সমালোচনা করে, তাহলে বুঝতে হবে আপনি ঠিক পথে আছেন। বলা যায়, আওয়ামী লীগের কল্যাণে বিএনপির ঢাক ঠিকই বাজছে। গণমাধ্যমে তারা শিরোনাম হচ্ছে নিয়মিত এবং নিখরচায়।

বছরখানেক আগে একটি টিভি চ্যানেলের টক শোতে আওয়ামী লীগের এক নেতা আমার মন্তব্যের সূত্র ধরে ক্ষোভের সঙ্গে বলেছিলেন, আওয়ামী লীগ আর বিএনপিকে এক পাল্লায় মাপা উচিত নয়। দুই দলের মধ্যে তুলনামূলক আলোচনা করলে আওয়ামী লীগের অনেকেই এ ধরনের মন্তব্য করেন। তাঁদের দাবি হলো আওয়ামী লীগ মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্ব দেওয়া দল, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ঝান্ডা তাদের হাতে। অন্যদিকে বিএনপি হলো জামায়াতের সুহৃদ, রাজাকারদের দল, স্বাধীনতাবিরোধীদের আখড়া। সুতরাং এ দুটি দলকে এক পাল্লায় মাপলে তাতে আওয়ামী লীগকে অপমান করা হয়। আর আওয়ামী লীগের অপমান মানে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা, রাষ্ট্রদ্রোহের শামিল।

বিএনপি নেতাদের মুখে এর জবাব আছে। তাঁরা বলছেন, জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির জোট আদর্শিক নয়, কৌশলগত। এটা নির্বাচনী জোট। বরং আওয়ামী লীগই একসময় জামায়াতকে সঙ্গে নিয়ে বিএনপি সরকারের বিরুদ্ধে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে আন্দোলন করেছে। সুতরাং তাদের মুখে বিএনপি-জামায়াত সম্পর্ক নিয়ে মন্তব্য করা শোভা পায় না।

এই তর্ক চলতেই থাকবে। শিগগির এর মীমাংসা হওয়ার সম্ভাবনা নেই। তবে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি এক পাল্লায় উঠেছিল অনেক আগেই, ১৯৯১ সালে। কয়েক দিন আগে-পরে দুই দলের দুই নেত্রী সিলেটে হজরত শাহজালাল (রহ.)-এর মাজার জিয়ারত করে নির্বাচনী প্রচার শুরু করেছিলেন।

হজরত শাহজালাল (রহ.) একজন সুফি সাধক। মধ্যযুগের শুরুর দিকে তিনি ৩৬০ জন সহচর নিয়ে এই মুলুকে এসেছিলেন ইসলাম ধর্ম প্রচারের উদ্দেশ্যে। এই অঞ্চলে পশ্চিম ও মধ্য এশিয়া থেকে অনেক সুফি সাধক ধর্মপ্রচারের উদ্দেশ্যে এসে এখানেই থিতু হয়েছিলেন। তাঁদের জীবন ছিল সাদামাটা। তাঁরা সব সময় রাজদরবার থেকে দূরে থেকেছেন। রাজা, রাজ্য আর রাজনীতি নিয়ে তাঁদের মধ্যে কোনো অনুরাগ-বিরাগ ছিল না। তাঁদের জীবন ও কাজ নিয়ে অনেক কিংবদন্তি প্রচলিত আছে। তাঁদের তালিকার সামনের সারিতে আছেন হজরত শাহজালাল (রহ.)।

তো রাজনৈতিক দলগুলো মাজার থেকে রাজনৈতিক প্রচার শুরু করে কেন? আমরা জানি, এ দেশের সাধারণ মানুষ ধর্মপ্রাণ, সরল। অদৃষ্টবাদী মানুষ বিপদে-আপদে এমনকি আনন্দের সময়ও পীর-আউলিয়াদের স্মরণ করে। পেশাদার রাজনীতিবিদেরা আমজনতার এই সেন্টিমেন্টটা ভালোই বোঝেন। এ দেশের ভোটারদের ৯০ শতাংশই মুসলমান। এদের এক বিরাট অংশ পীর-ফকিরের মাজারে আসা-যাওয়া করে, তাঁদের ভক্তি করে। সুতরাং মাজারকেন্দ্রিক প্রচারণার একটা বাজারমূল্য আছে বলে অনেকেই মনে করেন। পীর-ফকিরদের উপেক্ষা বা অবহেলা করে পার পাওয়া এ দেশে খুবই কঠিন, প্রায় অসম্ভব। আর রাজনীতিবিদেরা তো খুবই বাস্তববাদী এবং চালাকও বটে।

সংগত কারণেই আওয়ামী লীগ নেতা এম এ হান্নানের স্মৃতি ধরে রাখার জন্য আওয়ামী লীগ সরকার চট্টগ্রাম বিমানবন্দরের নতুন নামকরণ করেছিল ‘এম এ হান্নান আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর’। ২০০১ সালে ক্ষমতায় এসে বিএনপি সরকার ওই নাম পাল্টে দেয়। নতুন নাম দেয় শাহ আমানত বিমানবন্দর। চট্টগ্রাম এলাকায় শাহ আমানত (রহ.) একজন সম্মানীয় সুফি সাধক হিসেবে পরিচিত। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ যখন আবার ক্ষমতায় ফিরে আসে, তারা চট্টগ্রাম বিমানবন্দর থেকে শাহ আমানত (রহ.)–কে সরানোর সাহস পায়নি। তবে ঢাকা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে জিয়াকে সরিয়ে হজরত শাহজালাল (রহ.)–কে সেখানে বসিয়ে দিল। বিএনপি যদি আবার কখনো ক্ষমতায় ফিরে আসতে পারে, শাহজালাল (রহ.)–কে তারা সরাতে পারবে না। তবে তাদের কয়েকজন কনিষ্ঠ নেতা ইতিমধ্যে ঘোষণা দিয়েছেন, ক্ষমতায় গেলে তাঁরা ঢাকাকে ‘জিয়া সিটি’ বানাবেন।

হজরত শাজহজালাল (রহ.) কি কখনো কল্পনা করেছেন, তিনি রাজনীতির পণ্য হবেন? কিন্তু হয়ে গেছেন। সরল ও ধর্মপ্রাণ মানুষের সেন্টিমেন্টের সুযোগ নিয়ে রাজনীতি এ দেশে নতুন নয়। তবে এর প্রকোপ বাড়ছে দিনে দিনে। রাজনীতিবিদদের মনে একটা ধারণা তৈরি হয়েছে যে বাড়িতে মাদ্রাসা বানালে, বারবার হজ পালন করলে, মাথায় হিজাব-টুপি পরে চলাফেরা করলে এবং মাজারে মাজারে ঘুরলে মুসলমান ভোটারের মন জয় করা সহজতর হবে। ধর্মাশ্রয়ী রাজনীতির এই রূপ দিনে দিনে উৎকটভাবে ধরা দিচ্ছে। এখানে আওয়ামী লীগ আর বিএনপি একাকার। তারা নিজেরাই এক পাল্লায় উঠে গেছে। ভোটের এমনই জাদু!

রাজনীতিবিদদের পরামর্শ দেওয়ার ধৃষ্টতা আমার নেই। এ প্রসঙ্গে একটি কথা না বলে পারছি না। ২৩ জানুয়ারি ঢাকায় প্রথমা প্রকাশনের উদ্যোগে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক নুরুল ইসলামের আত্মজীবনীমূলক অ্যান অডিসি: জার্নি অব মাই লাইফ বইয়ের প্রকাশনা অনুষ্ঠানে অন্যতম আমন্ত্রিত বক্তা অধ্যাপক ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ অধ্যাপক নুরুল ইসলামের সঙ্গে তাঁর আলাপের সূত্র ধরে বলেন, ৩০ বছর ধরে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসিতে বসবাস করেন। ওখানে বসে প্রতিনিয়ত দেশের খোঁজ রাখেন। তাহলে দেশে কেন আসছেন না এমন প্রশ্ন আমি ওনাকে করেছিলাম। উত্তরে তিনি বলেন, নীতিনির্ধারকেরা যখন চাইবেন, তখনই উপদেশ দেবেন। স্ব-উদ্যোগে দিতে যাবেন না।

গত ৩০ বছরে কেউ ওনার কাছে উপদেশ চাননি। যখন যাঁরা ক্ষমতায় ছিলেন, ক্ষমতাসীন নীতিনির্ধারকের একজনের সঙ্গেও সরাসরি আলোচনায় বসার সুযোগ পাননি। একবার তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে দু-তিন পৃষ্ঠার একটি লিখিত পরামর্শ দিয়েছেন। পরে তিনি জেনেছেন, সেটা কেউ পড়েও দেখেননি’ (প্রথম আলো, ২৪ জানুয়ারি ২০১৮)।

আওয়ামী লীগ মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়েছে। বাংলাদেশ রাষ্ট্রের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দীর্ঘকাল এই দলের কান্ডারি ছিলেন। আওয়ামী লীগের এখনকার কান্ডারি তাঁর কন্যা শেখ হাসিনা। তিনি সিলেট সফরে যাচ্ছেন এবং খুব স্বাভাবিকভাবেই হজরত শাহজালালের (রহ.) মাজার জিয়ারত করবেন। কিন্তু আমি খুশি হব যদি তিনি মুজিবনগর থেকে তাঁর নির্বাচনী প্রচার শুরু করেন। এর একটি প্রতীকী মূল্য আছে। কারণ এখানেই একাত্তরের ১৭ এপ্রিল স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সরকার শপথ নিয়েছিল এবং স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র পাঠ করা হয়েছিল।

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আনুষ্ঠানিকভাবে ঢাকার বাইরে থেকে নির্বাচনী প্রচার শুরু করার সুযোগ পাবেন কি না, তার সম্ভাবনা এখন পেন্ডুলামের মতো দুলছে আদালতের রায়ের ওপর। তারপরও তিনি যদি সুযোগ পান, অন্যান্যবারের মতো তিনিও হয়তো ছুটবেন সিলেটে, হজরত শাহজালাল (রহ.)–এর মাজার জিয়ারতের মধ্য দিয়েই শুরু করবেন নির্বাচনী প্রচারণা। বিএনপি দাবি করে, তাদের দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা, স্বাধীনতার ঘোষক।

এবং বিএনপি মুক্তিযোদ্ধাদের একটি দল বলে দলের অনেক তরুণ মনেপ্রাণে বিশ্বাস করেন। আমি চাইব মুক্তিযোদ্ধাদের একটি দল হিসেবে বিএনপি নিজের পরিচিতি আরও স্পষ্টভাবে তুলে ধরুক। খালেদা জিয়াও সিলেট যান এবং হজরত শাহজালালের (রহ.) মাজার জিয়ারত করুন, কিন্তু নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক প্রচারণা তারা শুরু করুক চট্টগ্রামের কালুরঘাট থেকে, যেখান থেকে ১৯৭১ সালের ২৭ মার্চ শেষ বিকেলে জিয়াউর রহমান নিজ হাতে লেখা স্বাধীনতার একটি ঘোষণা রেডিওতে পাঠ করেছিলেন।

[প্রথম আলোর সৌজন্য, মহিউদ্দিন আহমদ: লেখক ও গবেষক।
mohi2005@gmail.com]

পিএনএস/জে এ /মোহন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech