অন্য পুরুষের সাথে সাবরিনাক ‘আপত্তিকর অবস্থায়’ দেখে যা করেছিলেন আরিফ!

  

পিএনএস ডেস্ক: করোনা ভাইরাসের পরীক্ষা নিয়ে জেকেজি হেলথকেয়ারের রিপোর্ট জালিয়াতির ঘটনায় গ্রেফতার জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের চিকিৎসক ও জেকেজির চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা শারমিন হুসাইন ওরফে সাবরিনা আরিফ চৌধুরীকে সোমবার ৩ দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছে আদালত।

সূত্রের খবরে জানা যায়, স্বামী-স্ত্রী মিলে করোনা টেস্ট জালিয়াতি করলেও তাদের দাম্পত্য জীবন সুখের ছিল না। স্ত্রীর সঙ্গে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের এক চিকিৎসককে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলায় ওই চিকিৎসককে মারধর করেন আরিফ চৌধুরী।

পরে এ ঘটনায় স্বামীর বিরুদ্ধে শেরেবাংলা নগর থানায় ডিজি করেছিলেন ডা. সাবরিনা। এছাড়াও জেকেজির এই কর্মীকে অশালীন প্রস্তাব দেয়ায় গুলশান থানায় আরিফ চৌধুরীর বিরুদ্ধে মামলা রয়েছে।

জানা যায়, এর আগেও একবার বিয়ে হয়েছিল ডা. সাবরিনার। প্রথম সংসারে তার দুই সন্তান আছে। তবে জিকেজির প্রধান নির্বাহী আরিফ চৌধুরীকে বিয়ে করার পর তাদের কোনও সন্তান হয়নি।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে ডা. সাবরিনা দাবি করেন, দুই মাস আগে আরিফ চৌধুরীর সঙ্গে তার তালাক হয়ে গেছে। এখন তাদের মধ্যে কোনও সম্পর্ক নেই। আরিফ চৌধুরীর এক স্ত্রী লন্ডনে, একজন রাশিয়ায় থাকেন। অপর স্ত্রীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হলেও সমঝোতার জন্য ওই স্ত্রী এখনও উপর মহলে দৌড়াদৌড়ি করছেন বলে জানা গেছে।

এদিকে ডা. সাবরিনার ঘনিষ্ঠজন সূত্র জানিয়েছে, রাজধানীর মোহাম্মদপুরে রনি নামে সাবরিনার এক ব্যবসায়ী বন্ধু থাকেন। মাঝেমধ্যেই নিজে গাড়ি চালিয়ে রনির বাসায় যেতেন ডা. সাবরিনা। তাদের মধ্যে বেশ সখ্যতাও ছিল।

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন