করোনায় বিনামূল্যে সাড়ে ৬ হাজার টন চাল

  


পিএনএস ডেস্ক: করোনাভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবেলায় দেশের বিভিন্ন এলাকায় বসবাসরত নিম্ন আয়ের মানুষদের মধ্যে বিনামূল্যে চাল বিতরণ করা হবে। এ জন্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে সাড়ে ছয় হাজার টন চাল। এই চাল খুুব শিগগিরই জেলা প্রশাসকদের মাধ্যমে বিতরণ করা হবে। মানবিক সহায়তা হিসেবে ত্রাণ হিসেবে এ চাল দেয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতর থেকে এ সংক্রান্ত একটি বরাদ্দপত্র জেলা প্রশাসকদের কাছে পাঠানো হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

খাদ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, করোনাভাইরাসজনিত বর্তমান অবস্থা মোকাবেলা করার জন্য রাজধানী ঢাকাসহ দেশের ৬৪ জেলায় বর্তমানে চালের মজুদ আছে ১৮ হাজার ২১৭ টন। এ থেকে ৬ হাজার ৫০০ টন চাল বিতরণ করা হবে।

এই চাল বিতরণের বিষয়ে বলা হয়েছে, ‘দেশের ৬৪ জেলার জেলা প্রশাসকগণ দুর্যোগ পরিস্থিতিতে মানবিক সহায়তা বাস্তবায়নে নির্দেশিকা ২০১২-২০১৩ অনুসরণ করে বরাদ্দকৃত চাল বিতরণ করবেন এবং সরকারি বিধি-বিধান পালনপূর্বক নিরীক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় হিসাব সংরক্ষণ করে তা সংশ্লিষ্ট অধিদফতরকে অবহিত করবেন। বরাদ্দকৃত চালের ব্যয় চলতি ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের ত্রাণকার্য (চাল) মঞ্জুরি খাত থেকে নির্বাহ করা হবে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরের হিসাব থেকে দেখা যায় বর্তমানে ঢাকায় চালের মজুদ ৩০৩ টন, গাজীপুরে ১১৪ টন, ময়মনসিংহে ২৬৫৬ টন, ফরিদপুরে ২০৭ টন, কিশোরগঞ্জে ৪৪৪ টন, নেত্রকোনায় ৫৮৫ টন, টাঙ্গাইলে ২৪৪ টন, নরসিংদীতে ১২০ টন, মানিকগঞ্জে ২৪৭ টন, মুন্সীগঞ্জে২৩৫ টন, নারায়ণগঞ্জে ২৩৫ টন, গোপালগঞ্জে ৩১২ টন, জামালপুরে ২৪৪ টন, শরীয়তপুরে ১৯৮ টন, রাজবাড়ী ২০৭ টন, শেরপুর ২২৪ টন, চট্রগ্রাম ৫৩২ টন, রাঙ্গামাটিতে ৫১৩ টন, খাগড়াছড়ি ২১৫ টন, কুমিল্লাতে ২১৩ টন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ৩০০ টন, চাঁদপুরে ২৩৪ টন, নোয়াখালীতে ২২৬ টন, ফেনীতে ৬৬৮ টন, লক্ষ্মীপুরে ৫০০ টন, বান্দরবানে ২৫২ টন, রাজশাহীতে ৩৯৮ টন, নওগাঁয় ১৯২ টন, পাবনায় ১৮০ টন, সিরাজগঞ্জে ৩৫৩ টন, বগুড়ায় ৩১৮ টন, নাটোরে ১৫৫ টন, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১৪৮ টন, জয়পুরহাটে ১৯৬ টন, রংপুরে ৪৮৫ টন, দিনাজপুরে ২২৬ টন, কুড়িগ্রামে ২৫৮ টন, ঠাকুরগাঁওয়ে ২৪৮ টন, পঞ্চগড়ে ৩৭১ টন, নীলফামারী ২৮১ টন, গাইবান্ধায় ২০৯ টন, লালমনিরহাটে ২১২ টন চাল মজুদ আছে।

এ ছাড়াও খুলনায় ৪৪০ টন, বাগেরহাটে ৫৯৩ টন, যশোরে ২৪ টন, কুষ্টিয়ায় ১২০ টন, কুষ্টিয়ায় ১২০ টন, সাতক্ষীরায় ২০০ টন, ঝিনাইদহে ২২৮ টন, মাগুরায় ১১০ টন, নড়াইলে ১৮৬ টন, মেহেরপুরে ৩১৬ টন, চুয়াডাঙ্গায় ২৫৮ টন, বারিশালে ১৯৫ টন, পটুয়াখালীতে ২০৬ টন, পিরোজপুরে ২৮৯ টন, ভোলায় ২৭৭ টন, বরগুনায় ২০৮ টন, ঝালকাঠিতে ২০৮ টন, সিলেটে ৩২১ টন, হবিগঞ্জে ৩৭৫ টন, সুনামগঞ্জে ২৯৫ টন এবং মৌলভীবাজার ৫৭৫ টনসহ সারা দেশে ১৮ হাজার ২১৭ টন চাল মজুদ আছে। তা থেকেই ৬ হাজার ৫০০ টন চাল দুস্থ ও নিম্ন আয়ের মানুষদের মধ্যে ত্রাণ হিসেবে বিতরণ করা হবে।

এ বিষয়ে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, করোনাভাইরাস যাতে দ্রুত ছড়িয়ে ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি করতে না পারে সে জন্য সরকার দেশজুড়ে ১০ দিনের ছুটি ঘোষণা করেছে। সেই সাথে সবাইকে নিজ নিজ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ঘরে অবস্থান করতে বলা হয়েছে। নিরাপত্তার স্বার্থে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়। রাস্তাঘাটে সব ধরনের সমাবেশ বন্ধ করা হয় শপিং মল ও হাট-বাজার বন্ধ ঘোষণা করা হয়। ফলে দিন এনে দিন খায় এমন মানুষসহ নিম্নআয়ের মানুষদের ভোগান্তি বেড়ে যায়।

১০ দিন ঘরে থাকা অবস্থায় যাতে এসব মানুষদের খাদ্যাভাব দেখা না দেয় সে জন্য সরকার বিশেষ ব্যবস্থায় এই চাল বিতরণের উদ্যোগ নিয়েছে। এতে করে সীমিত পর্যায়ে হলেও নিম্ন আয়ের মানুষদের দুঃখ দুর্দশা কিছু লাঘব হবে। প্রয়োজনে আরো চাল বিতরণ করা হবে বলেও তিনি জানান।

পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন