রাজধানীতেও আজ বাস চলাচল কম

  

পিএনএস ডেস্ক : রাজধানীতে আজ মঙ্গলবার অন্যান্য দিনের তুলনায় বাস চলাচল বেশ কম। এতে সকাল থেকেই দুর্ভোগে পড়েছেন সাধারণ যাত্রীরা। রাজধানীর বিভিন্ন রাস্তায় সকালে স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীসহ অফিসগামী মানুষের ভিড় বেশি লক্ষ করা যায়। বাস না পেয়ে অনেক মানুষকে অন্য পরিবহনে গন্তব্যে যেতে দেখা গেছে।

১৭ নভেম্বর থেকে নতুন সড়ক পরিবহন আইন কার্যকর হয়েছে। এর কারণে আজকে অনেকটা অঘোষিতভাবেই বাস চলাচল কম হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ট্রাফিক পুলিশ ও বাসমালিকেরা। আর এতে বিপাকে পড়েছেন যাত্রীরা।

মিরপুরে বাসা থেকে প্রতিদিন মতিঝিলে অফিস করেন মো. আবুল হোসেন। অফিসে যেতে সকাল সাড়ে আটটায় বাসা থেকে বের হন তিনি। অন্যান্য দিনের চেয়ে আজ বাস পেতে অনেক সময় লেগেছে তাঁর। মিরপুর ১২ নম্বরে বাসস্ট্যান্ডে যাত্রীর সংখ্যা অনেক বেশি ছিল, বাস ছিল কম। বেশ ভিড় ঠেলে বাসে উঠতে হয় তাঁকে। তবে রাস্তায় যানজট কম পেয়েছেন।

রাজধানীর মানিক মিয়া অ্যাভিনিউতে রাজধানী উচ্চবিদ্যালয়ের সামনে সংসদ সদস্যদের ভবনের সামনের রাস্তায় বেলা ১১টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত মোবাইল কোর্ট বসেছিল। মোট ১১টি যানবাহনকে বিভিন্ন ধরনের জরিমানা করা হয়। মোট ১০ হাজার টাকার ওপরে জরিমানা করা হয়। জরিমানা করা এসব যানের মধ্যে যাত্রীবাহী তিনটি বাস ছিল।

ঢাকা মহানগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের (পশ্চিম) অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) মঞ্জুর মোরশেদ বলেন, একটি বাসের চালকের ভারী যান চালানোর লাইসেন্স ছিল না, আরেকটি বাসে ভাড়ার তালিকা টাঙানো ছিল না ও আরেকটি বাসে ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী তোলা হয়েছিল। তাই জরিমানা করা হয়।

মোবাইল কোর্টের পাশে মোহাম্মদপুর থেকে উত্তরাগামী আর্ক পরিবহনের মালিক মজিবুর রহমানের সঙ্গে কথা হয়। তিনি বলেন, ‘আমাদের পরিবহনের ৩০টি বাস চালকসংকটের কারণে ১৫ দিন ধরে চলছে না।’ তিনি আরও বলেন, ‘চালকদের এখন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) থেকে ভারী যান চালানোর লাইসেন্স দিচ্ছে না। তাই বাস চালানোর জন্য চালক পাওয়া যাচ্ছে না। আমরা তো আর ঋণ করে বাস চালাতে হবে না।’

মজিবুর রহমান বলেন, এখন যে গণপরিবহনের শৃঙ্খলার কথা বলা হচ্ছে, সরকার তিনটি বিষয় নির্ধারণ করলে শৃঙ্খলা ফিরে আসবে। ভোগান্তি দূর হবে। এক, নিয়ম করা হোক কাউন্টার সার্ভিস ছাড়া কোনো বাস চলতে পারবে না ও কাউন্টারে যাত্রীদের জন্য টিকিট ব্যবস্থা থাকবে। দুই, চালক–হেলপারদের বাসমালিকেরা প্রতিদিন যে চুক্তিভিত্তিক ভাড়া দেন, সেটা বন্ধ করতে হবে। তিন, কিলোমিটার হিসাবে ভাড়া হলেও তা তিনটি ধাপে ভাগ করে দিতে হবে। এগুলো হলে কোনো সমস্যা হবে না। মানুষের ভোগান্তিও কমে আসবে।

আজ নগরীর বাড্ডা, গুলশান ও মগবাজার এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, গতকালের তুলনায় বাসের সংখ্যা তুলনামূলক কম। প্রগতি সরণিতে কথা হয় ট্রাফিক বিভাগের (উত্তর) এডিসি আবদুল্লাহ আল মামুনের সঙ্গে। তিনি বলেন, বাস কয়েক দিন ধরেই বাস কম। আজ অন্যান্য দিনের তুলনায় বেশ কম। সকালবেলা যমুনা ফিউচার পার্ক, নর্দায় বাসস্টপে যাত্রীদের চাপ বেশি ছিল। দুপুর থেকে ভিড় একটু কমে আসে।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন