ব্যারিস্টার মইনুলকে জনসম্মুখে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান

  

পিএনএস ডেস্ক : একটি বেসরকারি টেলিভিশনে অনুষ্ঠান চলাকালে ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে ‘চরিত্রহীন’ বলায় বিভিন্ন সংগঠন ও ব্যক্তি প্রতিবাদ জানিয়েছেন। এ ঘটনায় কটূক্তিকারীকে জনসম্মুখে ক্ষমা চাইতে বলেছেন মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি এবং নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের নেতারা। যদিও ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেনের দাবি, এ ঘটনায় একটি বিশেষ মহল বিভ্রান্তি চড়াচ্ছে।

ব্যারিস্টার মঈনুলকে সরাসরি গণমাধ্যমে সব নারীসমাজের কাছে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানিয়ে মেহের আফরোজ চুমকি বলেন, ‘আমি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টির প্রতি ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেনের আচরণ অত্যন্ত অশোভন, কুরুচিপূর্ণ ও নারীসমাজের প্রতি অসম্মানজনক।’ গতকাল বাংলাদেশ শিশু একাডেমি মিলনায়তনে নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে জাতীয় কর্মপরিকল্পনা (২০১৮-২০৩০) বিষয়ে এক আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় তিনি এ কথা বলেন।

এদিকে বিকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে নারী সাংবাদিককেন্দ্রের এক প্রতিবাদসভায় মঈনুল হোসেনকে প্রকাশ্যে তার অপরাধ স্বীকার করে নিঃশর্ত ক্ষমা চাওয়ার দাবি জানানো হয়। সেই সঙ্গে ভবিষ্যতে তিনি এমন ব্যক্তি-আক্রমণ করবেন না, এমন শর্তও দিয়েছেন নারী সাংবাদিকরা। শর্ত না মানলে মঈনুলের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার হুশিয়ারি তাদের।

কটূক্তির শিকার মাসুদা ভাট্টি বলেন, ‘যুক্তিহীন মানুষই সাধারণত ব্যক্তিগত আক্রমণ করে। একজন নারীর ক্ষেত্রে বিষয়টি সব সময় তার চরিত্রকে নির্দেশ করে আক্রমণ করা হয়। এ জন্য মঈনুল হোসেনকে ব্যক্তিগতভাবে নয়, জনসম্মুখে ক্ষমা চাইতে হবে।’

প্রতিবাদসভায় আরও উপস্থিত ছিলেন নারী সাংবাদিককেন্দ্রের সভাপতি নাসিমুন আরা হক মিনু, সাধারণ সম্পাদক পারভীন সুলতানা ঝুমা, বাংলাদেশ নারী সাংবাদিক সমিতির সভাপতি নাছিমা আক্তার সোমা, সাধারণ সম্পাদক আঞ্জুমান আরা শিল্পী। সাংবাদিকদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন মুন্নী সাহা, মিথিলা ফারজানা, নাসিমা খান মন্টি, শাহনাজ মুন্নী, ফারজানা রূপা, সুপ্রীতি ধর, আঙ্গুর নাহার মন্টি, ফারহানা মিলি, নাদিরা কিরণ, মুনমুন শারমিন শামস, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা প্রমুখ।

গতকাল এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন অবশ্য দাবি করেন, গত মঙ্গলবার একাত্তর টিভিতে একটি অনুষ্ঠানে মাসুদা ভাট্টিকে করা মন্তব্যের জেরে তার কাছে ফোনে দুঃখ প্রকাশ করার পরও মহলবিশেষ নানা অশালীন ভাষায় মন্তব্য করছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, মাসুদা ভাট্টি দল বিশেষের চর মন্তব্য করেছেন। এ ছাড়া অন্যান্য বিষয়ে তিনি আপত্তিকর মন্তব্য রেখেছেন। তিনি আমার রাজনৈতিক সত্তা ও সততা নিয়ে নিদারুণ আপত্তিকর ও অবমাননাকর বক্তব্য রেখেছেন। তাই আমিও তার সাংবাদিকতার নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন করেছি। অবাধ নির্বাচনের দাবিতে ড. কামালের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠিত হওয়ায় কিছু লোক বেসামাল হয়ে গেছে।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech