মানুষ চেনা বড় দায়

  

পিএনএস, ঝালকাঠি : একটি বৃদ্ধ সিংহ বনের রাজা ছিলো। বৃদ্ধ সিংহটির রাজ্যে সবাই সুখে শান্তিতে বসবাস করতো। সবাই সবার প্রতি সহানুভূতিশীল ছিল। সেই বৃদ্ধ সিংহকে মান্য করতো বনের সকল প্রাণী। হঠাৎ বৃদ্ধ সিংহটি মারা গেল। রাজ্যে নেমে এলো শোক। সবার মনে একটা নতুন প্রশ্ন জেগে উঠলো যে, কে হবে এই বনের রাজা? কারণ এই বনে ঐ সিংহটি ছাড়া আর কোন সিংহ ছিলোনা।

এই বনেই সাস করতো এক দুষ্ট বাঘ। সে দেখতে যেমন স্বাস্থবান তেমনি তার হুংকার। সে মনে মনে ভাবলো,এই তো সুযোগ রাজা হবার। সে আরো ভাবলো। তার সামনে এই বনের কেউ কথা বলতে পারবেনা এবং শক্তিতেও পারবেনা। তাই সেই হবে এই বনের রাজা। পরদিন সকালে তার কিছু ভক্তদের দ্বারা সারা রাজ্যে ঘোষনা করে দিলো যে,এখন থেকে সে এই বনের রাজা। অল্প কয়েকটি প্রাণী ছাড়া সবাই তার বিরোধিতা করলো। তবুও সেই দুষ্ট বাঘ তার সমর্থকদের নিয়ে রাজ্য পরিচালনা শুরু করলো। কিন্তু প্রায় সবাই তার বিরোধি হওয়ায় সারা রাজ্য জুড়ে শুরু হলো অরাজকতা। এভাবেই চলতে থাকলো কয়েক মাস। এর মধ্যে বণে এমন অশান্তি শুরু হয়ে গেল, যেন গৃহযুদ্ধ বেধে গেছে সারা রাজ্যে। হঠাৎ, একটি বানর এলো সেই রাজ্যে,সবাই ভাবলো পাশের কোন বন থেকে এসেছে।

কিন্তু না, বানরটা এসেছে পাশের একটা জনবসতি থেকে। বানরটি কিছুক্ষণ বনের মধ্যে থেকে বুঝতে পারলো বণের অবস্থা। সে সকল প্রাণীদের ডাকলো এবং বলল,আমি এই বনের অশান্তি দূর করতে পারবো। কয়েকটি প্রাণী বলল,কি করে শান্তি প্রতিষ্ঠা করবে এই বণে? বানর বলল,কালকে এই জায়গায় একটা সভা হবে, সেই সভায় এই বনের সকল প্রাণী উপস্থিত থাকবে, পরদিন বানরটির কথা মত সবাই উপস্থিত হলো সভায়। সভার মধ্যখানে বানরটি বসা। বানরটি বক্তৃতা দেয়া শুরু করলো।

“প্রিয় উপস্থিতি”
আমি এসেছি এই বনের পাশের একটা জনবসতি থেকে। আমি তোমাদের বনের অবস্থা গত একদিন ধরে পর্যবেক্ষণ করেছি। আমি তোমাদের অবস্থা বুঝতে পারছি। তোমরা এক অরাজকতার রাজ্যে বসবাস করছো। কারন,তোমাদের যোগ্য নেতা নেই বলে,কোন জাতি ততদিন পর্যন্ত সাফল্য অর্জন করতে পারবেনা। যতদিন পর্যন্ত তারা তাদের নেতার অনুগত্য না করবে। কিন্তু নেতা যোগ্যতা সম্পন্ন হতে হবে। তোমাদের সবার মন থেকে অহংকার দূর করতে হবে। অন্যকে নিজের থেকে শ্রেষ্ঠ মনে করতে হবে। সবাইকে অন্যের সুখে সুখি,এবং অন্যের দু:খে দু:খী হতে হবে। তাহলেই ফিরে আসবে সেই আগের মত শান্তি। তোমরা মানব সম্প্রদায়ের দিকে তাকাও, দেখবে তারা কিভাবে একে অন্যের সাহায্যে এগিয়ে আসছে। তাই তো তারা এত দ্রুত প্রকৃতি জয় করতে সক্ষম হয়েছে। তাই আমি বলছি, তোমরা তোমাদের মাঝে ঐক্য তৈরী করো এবং নিজেকে ছোট এবং অপরকে বড় মনে কর। তাহলেই নিশ্চিতভাবে তোমাদের মাঝে শান্তি ফিরে আসবে।

বানরের এতক্ষনের বক্তৃতা শুনে সবার মনেই পরিবর্তন হলো। দুষ্ট বাঘ বুঝতে পারলো জিবনের সার্থকতা কোথায়। ঐ সভায় বসা ছিলো এক শিয়াল, সে এই ঠান্ডা পরিবেশে হঠাৎ বলে উঠলো,আমাদের রাজা হবে কে? বানর বলল, যে এই বণে সবচেয়ে গোগ্যতা সম্পন্ন সেই হবে রাজা। শিয়াল বলল,তাহলে আমরা একটা কাজ করি, নির্বাচন করি। বানর বলল,না, নির্বাচন হবেনা।

প্রথমে,যারা যারা রাজা হতে ইচ্ছুক তাদের নাম তালিকা করতে হবে। তার পর তাদের প্রত্যেককে এক সপ্তাহ করে রাজ্য পরিচালনার ভার দেওয়া হবে। যে, সবচেয়ে ভালো রাজ্য পরিচালনা করতে পারবে সেই হবে রাজা। বানরের কথা সবাই “ঠিক” ধ্বনি দিয়ে মেনে নিলো। তো বানরের কথা মত, যারা যারা রাজা হবে ইচ্ছুক, তাদের সবাইকে এক সপ্তাহ রাজ্য পরিচালনার ভার দেওয়া হলো,শেষে দেখা গেল যে,একটা শিয়াল সবচেয়ে ভালোভাবে রাজ্য পরিচালনা করেছে। কথামত সেই শিয়ালটিকেই রাজা বানানো হলো সেই রাজ্যের। সবাই শিয়ালকে একসুরে মেনে নিলো তাদের রাজা হিসেবে। রাজা শিয়াল ভালোভাবেই রাজ্য পরিচালনা শুরু করলো। কয়েক দিনের মধ্যেই রাজ্যে ফিরে এলো বহু আকাক্ষিত শান্তি সবাই সবাইকে সাহায্য সহ-যোগিতা করা শুরু করলো। যে রাজ্যে অল্প ক,দিন আগেও অরাজকতায় ভরা,সেই রাজ্য আজ শান্তিতে পরিপূর্ন। কয়েকদিন আগে বানরটি কোথাও চলে যায়। আর ফিরে আসেনি। কয়েক বছর কেটে গেলো। একদিন সবাই রাজার কাছে আবদার করলো যে,তারা জনবসতি মানে মানুষ দেখতে যাবে। যাদের চরিত্র এর কথা শুনে তারা ভালো হলো। রাজা বললেন,আচ্ছা যাবো, কালকেই যাবো।

রাজার কথা অনুযায়ী সাবাই প্রস্তুতি গ্রহণ করলো। পরদিন সকালেই সবাই হাটা শুরু করলো, এক দুপুর হাটার পর তারা পৌছলো জনবসতিতে তারা সবাই পাহাড়ের উপর থেকে নিচের জনবসতির দিকে তাকালো এবংয় যা দেখতে পেলো তা তাদের মনকে এক অজানা ব্যথ্যায় ভরিয়ে দিলো। মানুষে মানুষে মারা-মারি,কাটা কাটি করছে,একজন আরেকজনকে সম্পদের লোভে হত্যা করছে। একজন আরেকজনকে সম্পদের লোভে হত্যা করছে। হঠাৎ বনের পশু পাখিদের সামনে হাজির হলো, সেই বানরটি, তাকে দেখা মাত্রই সবাই ক্রোধে ফেটে জিজ্ঞাসা করলো যে, তুমিই বলেছিলে মানুষরা ভালো। একে অন্যকে সাহায্য সহযোগিতা করে। কিন্তু এখানেতো আমরা দেখছি মানুষ শুধু কিছু সম্পদের লোভে একে অন্যকে হত্যা পর্যন্ত করছে। তখন বানরটি বলল, শোন তোমরা আমি যখন তোমাদের একথা বলেছিলাম, কখন সত্যই মানুষ ভালো ছিলো। মানুষের সমাজে ছিলো শান্তি আর শান্তি। কিন্তু এখন আর মানুষ আস্তে আস্তে নয় খুব দ্রুত খারাপের পথে পাপের পথে ধাবিত হচ্ছে। তারা তাদের মনে অহংকারকে স্থান দিয়েছে। তাই তাদের সমাজের শান্তি বিনষ্ট হচ্ছে। যারা মারা মারি কাটাকাটি লেগেই আছে।

হঠাৎ একটা বৃদ্ধ শিয়াল বলল, হায়রে মানুষ! একদিন তোমাদের চরিত্র, আচরণ থেকে শিখে আমরা পেয়েছি। শান্তি ও সাফল্যে ভরা জীবন আজ তোমরা আমাদের থেকেও খারাপ হয়ে গেলে
লেখক : মো: জাহিদুল ইসলাম

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech