প্রতিবেশি মহিলাকে হত্যা মামলায় ১৬ বছর পর দুইজনের ফাঁসির রায়

  

পিএনএস, ময়মনসিংহ প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধে প্রতিবেশি মহিলা মরাজের মা (৬০)কে হত্যা মামলায় বিচার কার্যশেষে ১৬ বছর পর আদালত রায়ে মোঃ হেলিম (৬৪) ও আবুল কাশেম ভূঁইয়া (৬০)নামের দুইজনের মৃত্যুদন্ড আদেশ দিয়েছেন। সেইসাথে এ মামলায় আব্দুল আজিজ (৫৫) ও খোকন ভূঁইয়া (৫২) নামের দুই আসামিকে তিন বছর করে কারাদন্ডসহ ৩ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ৩ মাসের কারাদন্ডের আদেশ এবং অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় আদালত আরও ২৫ আসামিকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) দুপুরে ময়মনসিংহের জেলা ও দায়রা জজ আদালতের স্পেশাল জজ এহসানুল হক এ রায় দেন। রায় শেষে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন আদালতের স্টেনোগ্রাফার (সাঁটলিপিকার) হাফিজুর রহমান।

রায় ঘোষণার সময় সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন। এসময় আদালত প্রঙ্গণে আসামিপক্ষ কান্নায় ভেঙে পড়েন। তারা উচ্চ আদালতে এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবেন বলে জানিয়েছেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আবুল হাশেম এ মামলার নথির বরাতে বলেন, ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার মাইজবাগ ইউনিয়নের বড়জোড়া গ্রামের হেলিম ও আবুল কাশেমের সঙ্গে মরাজের মা’র ছেলে আব্দুস সালাম ভূঁইয়ার জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলছিল। এ ঘটনার জেরে ২০০৩ সালের ৩ নভেম্বর আসামিরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে মরাজের মা (৬০)কে হত্যা করে। ওই ঘটনায় দিনই নিহতের ছেলে আব্দুস সালাম বাদী হয়ে ঈশ্বরগঞ্জ থানায় ৩৩ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলার পর পুলিশ দীর্ঘ তদন্ত শেষে ৩১ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দেন। ইতোমধ্যে বিচার চলাকালে দুইজন মারা যান। আদালতের বিচারক মামলার দীর্ঘ শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) দুপুরে ঘটনার ১৬ বছর পর এ রায় দেন।

আদালত রায়ে ৩০২ ধারায় ২ জনকে মৃত্যুদন্ডের পাশাপাশি ৩০ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ একই সঙ্গে ৩২৪ ধারায় ২ আসামিকে ৩ বছরের সশ্রম কারাদন্ডসহ ৩ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ৩ মাসের কারাদন্ডের আদেশ দেন।

এ মামলায় মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত হেলিমের বড় ভাই নুরুল ইসলাম মাস্টার বলেন, আমরা ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছি। জমির লোভে বাদী নিজের মা’কে খুন করে মিথ্যা মামলায় আমাদের ফাঁসিয়েছে। আমরা উচ্চ আদালতে আপিল করবো।

পিএনএস/মো: শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech