৩ হাজার বছরের পুরনো ওষুধে করোনা চিকিৎসায় শুরু চীনে! সফলতার দাবি

  

পিএনএস ডেস্ক : চীন থেকে শুরু করে গোটা বিশ্বে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে করোনাভাইরাস। চীন ছাড়াও প্রায় ২৬টি দেশে ছড়িয়েছে এই ভাইরাস। প্রাণঘাতী এ ভাইরাসে এখন পর্যন্ত ১৬৬৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া ভয়ঙ্কর এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৬৯ হাজারের বেশি মানুষ।

এ নিয়ে স্বাভাবিক ভাবেই চিন্তিত গোটা বিশ্ব। আরও বেশি চিন্তার কারণ হল করোনাভাইরাস থেকে বাঁচার উপায় এখনও মেলেনি।

হুবেই প্রদেশের স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান ওয়াং হেশেং জানান, চীনের উহানের হাসপাতালে ইতোমধ্যেই প্রায় ৩০০০ বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী চীনা ওষুধের ব্যবহার করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা শুরু করেছেন চিকিৎসকরা।
হেশেং জানান, ইতোমধ্যে ট্র্যাডিশনাল চাইনিজ মেডিসিন (TCM) এর বিশেষজ্ঞদের ২,২০০ জনের একটি দল পৌঁছে গিয়েছে হুবেই প্রদেশে। যেখান থেকে দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়েছিল এই করোনাভাইরাস।

হেশেং-এর দাবি, ট্র্যাডিশনাল চাইনিজ মেডিসিনের প্রয়োগে ইতোমধ্যে কিছুটা আশাব্যঞ্জক ফলও পেয়েছেন তারা। ১৫ হাজার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের ট্র্যাডিশনাল চাইনিজ মেডিসিন (TCM) এর মাধ্যমে চিকিৎসার জন্য গড়ে তোলা হয়েছে নতুন দু’টি হাসপাতালও।

করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার প্রধান লক্ষণগুলো হল শ্বাসকষ্ট, জ্বর, কাশি, নিউমোনিয়া ইত্যাদি। এটি শরীরের এক বা একাধিক অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ নিষ্ক্রিয় করে আক্রান্ত ব্যক্তির মৃত্যু ঘটাতে পারে।

এদিকে, করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে বিজ্ঞানীরা এখনও পর্যন্ত তেমন কোনো আশার আলো দেখাতে পারেননি। তবে বিজ্ঞানীরা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে রক্ষার উপায় হিসেবে মাস্কে মুখ-নাক ঢেকে বেরোনোর পরামর্শ দিচ্ছেন। সূত্র: জিনিউজ।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন