অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া দেবে ভারত

  

পিএনএস ডেস্ক : পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার ও ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের মধ্যে দেশটির জাতীয় নাগরিক পঞ্জী বা এনআরসি এবং নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল (সিএবি) নিয়ে সংঘাতময় অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এসবের মধ্যে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গ সীমান্তের ৮২ কিলোমিটারে কাঁটাতারের বেড়া দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের নদীয়া, মুর্শিদাবাদ ও উত্তর-চব্বিশ পরগনা জেলার সীমান্তে এ কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ করা হবে।

শনিবার (৭ ডিসেম্বর) দ্য নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসে প্রকাশিত ‘বারবেড ওয়্যার ফেন্সিং অ্যালং ৮২ কিলোমিটার ইন্ডিয়া-বাংলাদেশ বর্ডার’ শিরোনামের এক প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা যায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সীমান্তের ওই তিনটি জেলায় ৮২ কিলোমিটার এলাকাকে সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের গোয়েন্দা শাখা অনুপ্রবেশ-প্রবণ এলাকা হিসেবে সনাক্ত করেছে। উত্তর ২৪ পরগণা জেলায় জমি অধিগ্রহণের জন্য এরই মধ্যে ৮৮ কোটি রুপি বরাদ্দ দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। এই জেলার সঙ্গে বাংলাদেশের রয়েছে প্রায় ৩৫ কিলোমিটার সীমান্ত।

ভূমি ও ভূমি রাজস্ব বিভাগের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, কেন্দ্রীয় সরকারের প্রস্তাবনা এরই মধ্যে গ্রহণ করেছে মন্ত্রিপরিষদ।

বরাদ্দের প্রথম দফার অর্থ পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে উত্তর ২৪ পরগণা জিলা পরিষদে। তবে জমি অধিগ্রহণে রাজ্য সরকারের নীতি অনুসরণ করা হবে। জমির মালিকদের কাছ থেকে জমি অধিগ্রহণ করে তা হস্তান্তর করা হবে বিএসএফের কাছে। কাজ সম্পন্ন করবে কেন্দ্রীয় সরকার। রিপোর্টে আরো বলা হয়েছে, উত্তর ২৪ পরগণার প্রায় ৩১ কিলোমিটার সীমান্তে কোনো বেড়া নেই।

বিএসএফের এক কর্মকর্তা বলেছেন, এই সুযোগ নিচ্ছে অনুপ্রবেশকারীরা। এ ছাড়া এই জেলায় রয়েছে ১৬৫ কিলোমিটার জলাভূমিযুক্ত সীমান্ত। ওদিকে বাংলাদেশের সঙ্গে প্রায় ৯১৬ কিলোমিটার সীমান্ত রয়েছে দক্ষিণবঙ্গের। তার মধ্যে ৫৪৪ কিলোমিটারে কাঁটাতারের বেড়া নেই।

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech