সালমানের ৬ অপকর্ম - বিনোদন - Premier News Syndicate Limited (PNS)

সালমানের ৬ অপকর্ম

  

পিএনএস ডেস্ক : গাড়িচাপা দিয়ে মানুষ হত্যা থেকে শুরু করে বিরল প্রজাতির প্রাণী হত্যা, সাবেক প্রেমিকা ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চনের গায়ে হাত তোলাসহ আরোও অনেক অঘটনের জন্ম দিয়ে বহুবার মুখরোচক খবরের শিরোনাম হয়েছেন সালমান খান। আসুন জেনে নেওয়া যাক সালামানের এমন ৬ টি অপকর্মের কথা।

১) ১৯৯৮ সালে সালমান খান প্রথম বিতর্কের জন্ম দেন। সে বছরের ১ অক্টোবর গভীর রাতে যোধপুরের কানকানি গ্রামে বিরল প্রজাতির দুটি ব্ল্যাকবাক হরিণ শিকার করেন সালমান। এ জন্য বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইনে মামলা হয় তার বিরুদ্ধে। ‘হাম সাথ সাথ হ্যায়’ ছবির শুটিংয়ের সময় ব্ল্যাকবাক হরিণ শিকারের মামলায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছিল সালমানকে।

সম্প্রতি, সালমান খানকে একই মামলায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছিল ভারতের রাজস্থান রাজ্যের যোধপুরের একটি আদালত। পাশাপাশি তাকে ১০ হাজার রুপি জরিমানা করা হয়েছে। বন্য প্রাণী সংরক্ষণ আইনের ৫১ ধারায় দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে সালমানকে। তবে তিনি ৫০ হাজার রুপির ব্যক্তিগত বন্ডে জামিন দিয়েছে আদালত। এরইমধ্যে যোধপুর আদালত সামলমান খানের করা পিটিশনের ওপর শুনানি শেষে তার রায় প্রদান করেছে। রায়ে আদালত বৈধভাবেই সালমান খানকে বিদেশ ভ্রমণের অনুমতি প্রদান করেছে।

২) দ্বিতীয় বিতর্কিত অঘটন ঘটান ২০০২ সালে। সে বছরের ২৮ সেপ্টেম্বর ভোররাতে বান্দ্রায় একটি বেকারির সামনে ফুটপাতে ঘুমিয়ে ছিলেন পাঁচজন হতদরিদ্র মানুষ। সে সময় সালমানের টয়োটা ল্যান্ড ক্রুজার গাড়িটি তাদের চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়। মর্মান্তিক সেই দুর্ঘটনায় একজন নিহত ও চারজন আহত হন। দুর্ঘটনার সময় সালমানের সঙ্গেই গাড়িতে ছিলেন পুলিশ দেহরক্ষী প্রয়াত রবীন্দ্র পাতিল। তিনি বারবার সালমানকে বেপরোয়া গতিতে গাড়ি না চালাতে অনুরোধ করলেও, তা শোনেননি মাতাল সালমান। তিনি ঘণ্টায় প্রায় ১০০ কিলোমিটার গতিবেগে গাড়ি চালাচ্ছিলেন। একপর্যায়ে গাড়ির নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফুটপাতের ওপর ঘুমিয়ে থাকা মানুষদের চাপা দিলে হতাহতের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ২০০৫ সালে সালমানের বিচারকার্যক্রম শুরু হয়।

৩) ২০০২ সালেই আবার অসংযত আচরণের প্রমাণ দেন সালমান। সে বছর সালমানকে ছেড়ে চলে যান তার সাবেক প্রেমিকা ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন। সালমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ, মাতাল অবস্থায় ঐশ্বরিয়ার গায়ে হাত তুলেছিলেন তিনি। পরের বছর বলিউডের অভিনেতা বিবেক ওবেরয়ের সঙ্গে ঐশ্বরিয়ার প্রেমের খবর চাউর হয়। বিষয়টিকে ঠিক হজম করতে পারেননি সালমান। এক সংবাদ সম্মেলনে বিবেক দাবি করেন, সালমান এসএমএস পাঠিয়ে তাকে হুমকি দিয়েছেন।

৪) ২০০৮ সালে আবার নেতিবাচক খবরের শিরোনাম হন সালমান। সে বছর মুম্বাইয়ে নিজের বাড়িতে গণেশ পূজার আয়োজন করায় সালমানের বিরুদ্ধে ফতোয়া জারি করে কয়েকটি ধর্মীয় সংগঠন।

৫) একই বছর সাবেক প্রেমিকা ক্যাটরিনা কাইফের জন্মদিনের অনুষ্ঠানে ‘বলিউড বাদশাহ’ শাহরুখ খানের সঙ্গে বাগবিতণ্ডায় জড়িয়ে হইচই ফেলে দেন সালমান। একটা সময়ে শাহরুখ ও সালমানের ভেতর দারুণ বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ছিল। কিন্তু তাদের সেই বন্ধুত্বে ফাটল ধরে ২০০৮ সালের ১৬ জুলাই। সেদিন ক্যাটরিনার জন্মদিনের অনুষ্ঠানে ক্যাটকে নিয়ে কৌতুক করেছিলেন শাহরুখ। কিন্তু তা সহ্য করতে না পেরে শাহরুখের সঙ্গে তুমুল বাগবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন সালমান। সেই থেকে তাদের মধ্যে দূরত্ব ক্রমেই বাড়তে থাকে। তারা বছরের পর বছর কথা বলেননি।

৬) ২০০৮ সালের ২৬ নভেম্বর মুম্বাইয়ে পাকিস্তানের জঙ্গি সংগঠন লস্কর-ই-তাইয়েবার ভয়াবহ হামলায় প্রায় ১৬৪ জন নিহত ও ৩০৮ জন আহত হন। ওই ঘটনার দুই বছর পর ২০১০ সালে পাকিস্তানি একটি চ্যানেলে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বেফাঁস মন্তব্য করায় তীব্র সমালোচনার মুখে পড়তে হয় সালমানকে। তিনি মন্তব্য করেছিলেন, সমাজের উঁচু শ্রেণির মানুষদের লক্ষ্য করে ওই হামলা হওয়ায় তা নিয়ে বেশি মাতামাতি হয়েছে।
সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল


 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech