প্রবেশপত্রে আছে, পরীক্ষায় নেই রুম্পা

  

পিএনএস ডেস্ক :স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সিমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা শুরু হয়েছে আজ রোববার থেকে। পরীক্ষার ফি হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী রুবাইয়াত শারমিন রুম্পা ১৩ হাজার টাকা জমা দিয়েছিলেন। নিয়েছিলেন প্রবেশপত্রও! অথচ তিনি প্রবেশ করেবেন না পরীক্ষার কক্ষে।

গত বুধবার (৪ ডিসেম্বর) রাত পৌনে ১১টার দিকে সিদ্ধেশ্বরীর একটি বাসার নিচ থেকে শিক্ষার্থী রুবাইয়াত শারমিন রুম্পার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এই হত্যাকণ্ডকে কেন্দ্র করে উত্তাল হয়ে উঠেছে স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়। তবে সব শিক্ষার্থীর কথা চিন্তা করে সিমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা নেওয়া শুরু করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

রুম্পা স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ৬৯ তম ব্যাচের শিক্ষার্থী। আজ রোববার সকাল ১০টার সময় ৬৯ তম ব্যাচের ‘ইন্ট্রোডাকশন টু প্রোস বা গদ্য পরিচিতি’ পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু রুম্পার প্রতি শোক ও তাঁকে হত্যার বিচারের দাবিতে ইংরেজি বিভাগরে পরীক্ষা পেছানো হয়েছে। আজকের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১৭ ডিসেম্বর।

ইংরেজি বিভাগের আজকের পরীক্ষা পেছানো হলেও আগামী মঙ্গলবার থেকে পূর্বঘোষিত রুটিন অনুযায়ী পরীক্ষা নেওয়া শুরু করবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বিষয়টি প্রতিবেদককে জানিয়েছেন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ফতিমা তাবসুম।

রুম্পার বাবা হবিগঞ্জ জেলার একটি পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক রোকন উদ্দিনের ইচ্ছে ছিল মেয়েকে শিক্ষক বানানোর। আজ রবিবার রুম্পার বাবা কাঁদতে কাঁদতে বলেন, মেয়ে আমার শিক্ষক হবে, জতি গড়বে। অথচ আমার আজ সব আশা শেষ হয়ে গেছে।

সহকারী অধ্যাপক ফতিমা তাবসুন বলেন, রুম্পা খুবই মেধাবী ছাত্রী ছিল। গত সেমিস্টারে আমি তার ক্লাস নিয়েছি। হোমওয়ার্ক , ক্লাসের পড়া, পরিক্ষার খাতায় সে কখনো কমতি রাখতো না। আর আমার সেই মেয়ের মতো ছাত্রীকে হত্যা করা হয়েছে। পরীক্ষা দিতে পারবে না অথচ সে প্রবেশপত্র নিয়েছে। সে জন্য রুম্পার প্রিয় বিভাগ তার প্রতি শোক-শ্রদ্ধা জানিয়ে বিচারের দাবিতে আজকের পরীক্ষা স্থগিত করেছে। তবে আগামী মঙ্গলবার থেকে যথা-নিয়মে পরীক্ষা শুরু হবে।’

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন