৪ দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে না ফেরার দেশে জিয়াসমিন

  


পিএনএস ডেস্ক: মুন্সীগঞ্জ শ্রীনগরে স্বামীর নির্যাতন সইতে না পেরে গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহননের চেষ্টাকারী গৃহবধু জিয়াসমিন (৩৮) অবশেষে পৃথিবী ছেড়ে পরপারে চলে গেছেন ইন্নানিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজেউন। ৪দিন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে জিয়াসমিনের মৃত্যু হয়। ৭ইং জুন শুক্রবার দুপুরে শ্রীনগর উপজেলার শ্যামসিদ্ধি ইউনিয়নের সেলামতি গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। তাকে বার্ণ ইউনিটের ৩০ নম্বর ওয়ার্ডে রয়েছেন। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টায় জিয়াসমিনের বড় ভাই সিরাজুল ইসলাম আরিফ মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। বাড়ীতে এখন শোকের মাতম চলছে।

শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইউনুচ আলী জানান, ঘটনার পর থেকে জিয়াসমিনের স্বামী পলাতক রয়েছে। তিনি আর বলেন এঘটনায় সোমবার (১০জুন) রাতে মেয়ে বড় ভাই মোঃ সিরাজুল ইসলাম আরিফ বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ১১ (খ) ধারা মামলা করেছেন মামলা নং ৯।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শ্রীনগর উপজেলা শ্যামসিদ্ধি ইউনিয়নের সেলামতি গ্রামের সিরাজুল ইসলাম তার স্ত্রী জিয়াসমিন (৪০) এর উপর শারীরীক ও মানসিক নির্যাতন চালায়। স্বামীর নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে সে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। প্রতিবেশীরা উদ্ধার কারার আগেই তার গায়ের বেশীর ভাগ অংশ ঝলসে যায়। জিয়াসমিনকে শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আশংকাজনক অবস্থায় তাকেঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে প্রেরণ করে।

জিয়াসমিন কোলাপাড়া ইউনিয়নের ব্রাহ্মন পাইকসা গ্রামের মৃত আঃ আজিজ চৌধুরীর মেয়ে। প্রায় ২৩ বছর পূর্বে সেলামতি গ্রামের সিরাজুল ইসলামের সাথে তার বিয়ে হয়। তাদের সংসারে প্রতিবন্ধী ১ মেয়ে ও মালয়েশিয়া প্রবাসী ১ ছেলে রয়েছে।


পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech