পরীক্ষার হলে নকল সরবরাহের অভিনব পদ্ধতি! - অপরাধ - Premier News Syndicate Limited (PNS)

পরীক্ষার হলে নকল সরবরাহের অভিনব পদ্ধতি!

  

পিএনএস ডেস্ক: সারাদেশে চলমান এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ধারাবাহিক প্রশ্নফাঁসের মধ্যে দিয়ে এবার অভিনব পদ্ধতিতে পরীক্ষা কেন্দ্রে নকল সরবরাহ করার দৃশ্য ধরে পড়েছে। ওই দৃশ্যে দেখা যায়, পরীক্ষা কেন্দ্রের বাইরে থেকে রাস্তায় দাঁড়িয়ে প্রকাশ্যে অভিভাবকরা বাঁশের খুটিতে নকল বেঁধে জানালা দিয়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে সরবরাহ করেছেন।

গতকাল শনিবার( ১০ ফেবরুয়ারি) গণিত পরীক্ষার দিনে কুমিল্লার কম্পানিগঞ্জ উপজেলার বদিউল আলম উচ্চ বিদ্যালয়ে দেখা যায় এই অভিনব নকল সরবরাহ পদ্ধতি।

গত ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এসএসসি ও সমমানের বাংলা প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র দুটি পরীক্ষারই প্রশ্নফাঁস হওয়ার পর প্রশ্ন ফাঁসকারীকে ধরিয়ে দিলে পাঁচ লাখ টাকা পুরস্কার দেওয়ার ঘোষণা দেন শিক্ষামন্ত্রী।

এছাড়াও বাংলা প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের অভিযোগের প্রেক্ষাপটে করণীয় নির্ধারণে একটি কমিটি গঠন করে দেন। কিন্তু এরপরও ইংরজি প্রথমপত্র এবং ইংরেজি দ্বিতীয় পত্রের প্রশ্ন ফাঁস হয়।

গত বৃহস্পতিবার ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষার প্রশ্নপত্রও ফাঁস হয়। গতকাল শনিবার গণিত পরীক্ষা প্রশ্নপত্রও পরীক্ষা শুরুর আগেই পাওয়া গেছে ফেইসবুকে।

এদিকে আজ রবিবার অনুষ্ঠিত আইসিটি পরীক্ষার প্রশ্নপত্রও ফাঁস হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত অনুষ্ঠিত সাতটি বিষয়ের প্রশ্নই ফাঁসের অভিযোগ পাওয়া গেলো।

এদিকে প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে আজ রবিবার ৩০ মিনিটের বেশি সময় বন্ধ ছিল মোবাইল ইন্টারনেট। পরীক্ষার শুরুর সময় বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) এর নির্দেশনায় বন্ধ রাখা হয় মোবাইল ইন্টারনেট। তবে তারপরও ঠেকানো সম্ভভ হয়নি প্রশ্নফাঁস।

এদিকে ধারাবাহিক প্রশ্নফাঁসের বিষয়টি কখনও শিক্ষামন্ত্রী স্বীকার করে পরীক্ষা বাতিল বা ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন আবার কখনও বলেছেন, সরকারের বদনাম করতে এই কাজটি করছে একটি চক্র। এর পেছনে রাজনৈতিক কারণ জড়িত বলেও অভিযোগ তার।

এদিকে প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে গত কয়েক দিন ধরে দেশের বিভিন্ন স্থানে শিক্ষক, কর্মকর্তা, পরীক্ষার্থী এবং অভিভাবককে আটক করা হয়েছে। এ ব্যাপারে মামলাও হয়েছে বিভিন্ন স্থানে।

নওগাঁ জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ও জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা (এনএসআই) সংস্থার যৌথ দল গতকাল শনিবার(১০ ফেবরুয়ারি) রাত ১০টা থেকে আজ রবিবার সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত জেলার পত্নীতলা ও ধামইরহাট এবং জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে প্রশ্নফাঁসে জড়িত থাকার অভিযোগে দুই শিক্ষকসহ পাঁচ ছাত্রকে আটক করে।

গেল কয়েক বছর ধরেই প্রশ্ন ফাঁস একটি আলোচিত বিষয়। নানা প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নেয়ার পরও সামাজিক মাধ্যমে প্রশ্নফাঁস ঠেকানো যাচ্ছে না। অভিযোগ আছে ট্রেজারি থেকে প্রশ্ন কেন্দ্রে পাঠানোর সময় বা কেন্দ্র থেকেও ফাঁস হয় প্রশ্ন। আর এতে শিক্ষকদের একাংশের জড়িত থাকার অভিযোগও করেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

পিএনএস/আলআমীন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech