বেপরোয়া আদা-রসুন-পিঁয়াজ সিন্ডিকেট

  

পিএনএস (মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম প্রধান) : নজরদারি ও জবাবদিহিতার অভাবে বাজারে হু হু করে বাড়ছে আদা, রসুন ও পিঁয়াজের দাম। ঈদের পর কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে মধ্যসত্বভোগী ও অসাধু ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে আদা, রসুন ও পিঁয়াজের দাম দ্বিগুণ বাড়িয়ে ফায়দা লুটছে। প্রশাসনের অবহেলায় একশ্রেণীর ব্যবসায়ী এসব করে পার পেয়ে যাচ্ছে।

রমজানের পর এভাবে আদা, রসুন ও পিঁয়াজের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি ক্রেতা সাধারণকে ভোগাচ্ছে।আগে রমজানে এসব পণ্যসহ প্রয়োজনীয় অনেক পণ্যের দাম বাড়াত অসাধু ব্যবসায়ীরা। কিন্তু এবার ব্যাপক নজরদারি থাকায় কিছুটা স্বস্তি পায় ক্রেতা সাধারণ। ফাঁকতালে এ চক্রটি রমজানের পর আবার সক্রিয় হচ্ছে। বাজারে এসব পণ্যের ঘাটতি নেই, নেই কমতি। অথচ দাম বাড়ছেই!

রমজানে দেশী রসুনের কেজি ছিল ৪০ থেকে ৫০ টাকা, চায়না রসুন ছিল ৫০ থেকে ৬৫ টাকা, এককোষ রসুন ছিল ১০০ টাকা কেজি। এক মাস না পেরোতেই দেশী রসুনের কেজি এখন ১২০ টাকা, চায়না ১৬০, এককোষ ২১০ টাকা! একইভাবে ৬০ টাকা কেজির দেশী আদা এখন ১২০ টাকা, চায়না আদা ১৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

১৫ থেকে ১৮ টাকা কেজির দেশি পিঁয়াজ মানভেদে বাজারে এখন ২৫ থেকে ৩৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ইন্ডিয়ান বড় পিঁয়াজ আগে ছিল কেজি ১২ থেকে ১৫ টাকা কেজি, এখন সেটি ৩৫ টাকা! মৌসুমের পর হঠাৎ করে সিন্ডিকেট এমনটা করছে বলে অভিজ্ঞ মহলের ধারণা। সুযোগ বুঝে এরা একেক সময় একেক পণ্য বেছে নিয়ে কারসাজি করে মানুষকে ঠকিয়ে আঙুলফুলে কলাগাছ হয়।

কদিন আগে শাইখ সিরাজ পরিচালিত চ্যানেল আইয়ের কৃষিবিষয়ক অনুষ্ঠানে ক্ষুব্ধ এক কৃষক উচ্চ কণ্ঠে বলেন, ‘এক মণ পিঁয়াজ ১০০ টাকায় বিক্রি করছি। ন্যায্য দাম পাচ্ছি না!’ সে অনুষ্ঠানের এক মাস না পেরোতেই দেশি পিঁয়াজের কেজি ৩৬ টাকা।কৃষক কত পেয়েছেন তা তো জানা গেল চ্যানেল আইয়ের কল্যাণে। এভাবে মধ্যসত্বভোগী ও সিন্ডিকেট ক্রেতাদের জিম্মি করে প্রায়ই ফায়দা লোটে।

মৌসুমে কৃষকের কাছ থেকে কম দামে সংগ্রহ করার পর মধ্যসত্বভোগী ও অসাধু ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে ইচ্ছেমতো পণ্যের মূল্য বাড়ায়। বর্তমানে সিন্ডিকেট কীভাবে ক্রেতাদের পকেট কাটছে, চ্যানেল আইয়ের কৃষিবিষয়ক অনুষ্ঠানে ক্ষুব্ধ এক কৃষকের বক্তব্য এবং বর্তমান বাজারদর এর বড় প্রমাণ। মূলত সুষ্ঠু জবাবদিহির অভাবে বাজারে সিন্ডিকেটের পোয়াবারো এবং তারা বেপরোয়া।

লোকজন বলাবলি করছে, বিএনপির আমলে গোলআলুসহ পণ্যমূল্য বৃদ্ধি পেলে তারেক রহমানকে দায়ী করে সিন্ডিকেট বলে নানাভাবে জ্বালাময়ী বক্তৃতা-বিবৃতি দিতেন আজকের ক্ষমতাসীনরা। কিন্তু আজকে তারেক জিয়া/তারেক রহমান ভিন দেশে। তাহলে আজকে কারা এসব করছে; সে প্রশ্ন সামনে চলে আসছে। বাজার নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষ ও সংস্থাগুলো এসব নিয়ে ভাবছে বলে মনে হয় না।

মাত্র কিছুদিনের ব্যবধানে এবং কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে আদা, রসুন ও পিঁয়াজের বাজারকে কব্জায় নিয়ে গেছে সুযোগসন্ধানীরা। রসিকজনরা এটাকে বাকশালী সিন্ডিকেটের কারসাজি বলে মজা লুটছে। মৌসুমে রসুন ও পিঁয়াজের বাজার মূল্য এবং আজকের বাজার-মূল্য যাচাইপূর্বক এ পণ্যগুলোর ন্যায্যমূল্য নির্ধারণ সময়ের দাবি।

প্রতিবেদক : বিশেষ প্রতিনিধি- পিএনএস

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech