সবুজের মাঝে হলুদ ধুন্দুল ফুলের সমারোহ

  

পিএনএস, পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি : মাচার উপরে হলুদ ফুল আর সবুজ পাতার নিচে ঊঁকি দিচ্ছে সবুজ ধুন্দুল (পল্লা)। এ যেন সবুজের মাঝে হলুদ রঙের সমারোহ। মাচায় ধুন্দুল ফুলের হলুদের আভা শোভা পাচ্ছে খুলনা-পাইকগাছা প্রধান সড়কের পাশে সলুয়া নামক স্থানে। সবজি ক্ষেতের চোঁখ জোড়ানো হলুদ ফুলের সমারোহ কৃষকের পাশাপাশি পথিকও আকৃষ্টি হচ্ছে।

ধুন্দুল বা পল্লা সবজি হিসেবে বেশ চাহিদা রয়েছে। সবুজ এ সবজিটি অনেকে পল্লা নামে জানেন। আমাদের দেশে দুই ধরণের পল্লা পাওয়া যায়। একটি আমরা যেটা খাই। এর শাঁস তিতা নয়, সুস্বাদু ও নরম। অন্যটি বন্য পল্লা বা যাকে তিত পল্লা বলা হয়। এর ফল শুকিয়ে গ্রামাঞ্চলে স্পঞ্চের মত গায়ে শাবান মাখার খোশা তৈরী করেন।

উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর সূত্রে জানাগেছে, চলতি মৌসুমে পাইকগাছায় প্রায় ১০হেক্টর জমিতে পল্লার আবাদ হয়েছে। বাড়ীর আঙ্গিনায়, জমির আইলে ও মাচায় পল্লা চাষ করা হয়। উচু ও পানি জমেনা এমন জমিতে পল্লার চাষ ভাল হয়। দোআঁশ ও বেলে দোআঁশ জমি ধুন্দুল চাষের জন্য উত্তম। জমি চাষ ও মই দিয়ে আগাছা মুক্ত ও ঝুরঝুরে করে নিতে হয়। এরপর মাদা তৈরী করতে হয়। এক মাদা থেকে অপর মাদা ৮-১০ ফুট দূরত্ব হবে। মাটি থেকে মাদা ২-৩ ফুট উচু করে তৈরী করতে হয়। শতক প্রতি ১০-১২ গ্রাম বীজ আর বিঘা প্রতি ৩৩০-৩৪০ গ্রাম বীজ লাগে। বীজ বপনের আগে ভিজে রাখলে ভাল হয়। বীজ বপনের ৪০-৪৫ দিন পর থেকে ফল সংগ্রহ করা যায়। উন্নত জাতের বীজ, রোগমুক্ত, আধুনিক চাষ পদ্ধতি ও সঠিক নিয়মানুযায়ী চাষ করলে শতক প্রতি ১২০-১৪০ কেজি ফলন পাওয়া যায়। পল্লা শরৎকাল পর্যন্ত সংগ্রহ করা যায়। বোটা কেটে ফল সংগ্রহ করতে হয়। খাওয়ার জন্য কচি ও সবুজ রঙের পল্লা ভালো। খোঁশা শক্ত হলে সেটি আর খাওয়ার উপযুক্ত থাকে না।

পাইকগাছা-খুলনা মেইন সড়কের পাশে সলুয়া গ্রামের পশ্চিম পাশে কৃষক আনন্দ দাশ এক বিঘা জমিতে মাচায় পল্লার আবাদ করেছে। আর রাস্তার পূর্ব পাশে লিয়াকত আলী গাজী দুটি অংশে ১৫ কাটা জমিতে পল্লার আবাদ করেছে। পল্লা চাষী লিয়াকত গাজী জানান, কাটা প্রতি মাচা তৈরীর সরঞ্জম সহ ১ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। প্রতি ১ দিন পর পর পল্লার ফল তুলে বিক্রি করছেন। প্রথম দিকে ১ মন ৮শ টাকা দরে বিক্রি হলেও বর্তমানে ৬শ টাকা দরে মন বিক্রি করছেন। বাজারে পল্লার চাহিদা থাকায় কৃষকরা পল্লা বিক্রি করে লাভবান হচ্ছেন। তাদের পল্লার চাষ দেখে পাশের কৃষকরা পল্লা চাষে আগ্রহী হচ্ছে।

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ এএইচএম জাহাঙ্গীর আলম জানান, পল্লা একটি লাভ জনক সবজি। মাচায় পল্লার চাষ করলে বৃষ্টির সময় গাছের ক্ষতি হয় না এবং ফলও পাওয়া যায় প্রচুর পরিমানে। অল্প পরিশ্রমে পল্লা চাষ লাভজনক হওয়ায় কৃষকরা আর্থিকভাবে সাবলম্বি হচ্ছে।

পিএনএস/মো. শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech