স্বাস্থ্যকথা

জেনে নিন, সরিষার তেল খাবেন না মাখবেন

  

পিএনএস ডেস্ক: খাবারের স্বাদ রাঙাতে, ত্বকের যত্নে, এমনকি গাঁটের ব্যথা কমাতে সরিষার তেলের তুলনা নেই। সরষে ইলিশ থেকে শুরু করে মুড়িমাখা ও শরীরের সব জায়গায় মালিশ করা যায় সরিষার তেল।জেনে নিন কী কী উপকার মেলে এই তেল থেকে-সর্দি কাশি কমাতে: সর্দি কাশি কমাতে সরিষার তেলে রসুন থেঁতো করে ফুটিয়ে নিন। ঈষদুষ্ণ অবস্থায় বুকে-পিঠে মালিশ করুন। রোজ রাতে শোয়ার সময় এই টোটকা ব্যবহার করলে বুকে জমা কফ উঠে আসবে।প্রাকৃতিক সানস্ক্রিন হিসেবে: কী দরকার বাজারের ক্ষতিকারক সানস্ক্রিন ব্যবহার করার? হাতের কাছে

দুধে হলুদ মিশিয়ে খেলে...

  

পিএনএস ডেস্ক: হলুদ রান্নার অতি প্রয়োজনীয় একটি উপাদান। রূপচর্চায়ও এটি ব্যবহার হচ্ছে যুগ যুগ ধরে। হলুদের রয়েছে নানা ভেষজ গুণ। অন্যদিকে আদর্শ খাবার হিসেবে দুধের জুড়ি নেই। দুধের সঙ্গে যদি হলুদ মিশিয়ে খাওয়া যায় তাহলে দারুণ উপকার পাওয়া যায়। দুধে হলুদ মেশিয়ে নিয়মিত খেলে নানা ধরনের রোগ থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। বিশেষ করে ঋতু পরিবর্তনের সময় যে সর্দি -কাশি হয় তা থেকে বাঁচাতে সাহায্য করে এই খাবারটি। যেকোন ধরনের সংক্রমণ সারাতেও হলুদ-দুধ বেশ উপকারী। যারা ওজন কমাতে চান তারা রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে খেতে

সুস্থ শরীরে দীর্ঘদিন বাঁচতে পান্তা ভাত খান (ভিডিও)

  

পিএনএস ডেস্ক : বর্তমানে প্রায় সবার বাড়িতে সকালে গরম ভাত কিংবা নাস্তার প্রচলন। কিন্তু অতীতে সকাল বেলা মানে পান্তা ভাত, বিশেষ করে স্বল্প আয়ের পরিবারে। এ ভাতের সাথে একটু লবণ, শুকনা মরিচ পোড়া অথবা কাঁচা মরিচ এবং পিঁয়াজ। লেবু অথবা লেবু পাতার রস। থাকলে একটু আচার। এখনও গ্রামাঞ্চলে পান্তার প্রচলন রয়েছে। তবে শহরাঞ্চলে এই খাবারের প্রচলন নেই বললেই চলে। অথচ পুষ্টিগুণে ভরপুর এই পান্তা ভাত। চিকিৎসকরা বলছেন, জীবনের যাবতীয় শক্তি নাকি পান্তায় রয়েছে। তাদের দাবি, শরীর চর্চা না করেও পান্তা ভাত খেয়ে বলিষ্ঠ শরীর আর

এনার্জি ড্রিঙ্কস খেলে হার্ট অ্যাটাকও হতে পারে!

  

পিএনএস ডেস্ক: সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে যার এনার্জি ড্রিঙ্কস পান করেন তাদের হার্টবিট বেড়ে যাওয়া, বমি, হার্ট অ্যাটাকের মতো মারাত্মক সমস্যাও হতে পারে।গবেষণাটি করেছেন কানাডার অন্টারিও ওয়াটারলু বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা। গবেষকরা জানান, যারা এনার্জি ড্রিঙ্কস পান করেন তাদের মধ্যে হৃদপিণ্ডের ধুকপুকানি বেড়ে যাওয়া, বমি এবং কখনো কখনো হার্ট অ্যাটাকের মতো সমস্যাও দেখা দেয় বলে গবেষণায় প্রমাণ পাওয়া গেছে।কানাডায় বর্তমানে আইন আছে শিশুদের কাছে এনার্জি ড্রিঙ্কস বিক্রি করা যাবে না। আর ক্রীড়াবিদদেরকে

ওজন কমাতে বাঁধাকপি

  

পিএনএস ডেস্ক : বাঁধাকপির স্যুপশীত আসছে বাজারে এখন বাঁধাকপির রমরমা। আমরা অনেকেই জানি না, এই সাধারণ সবজিটি ওজন কমাতে আমাদের সাহায্য করে। ওজন কমিয়ে নিজেকে স্লিম আর আকর্ষণীয় করে তুলতে বাঁধাকপির স্যুপ বেশ কার্যকরী।নিয়মিতভাবে দিনে অন্তত একবার(যে কোনও সময়)এই স্যুপ খেলে ওজন কমার সম্ভাবনা দ্রুত। জেনে নিন কিভাবে এই ডায়েট স্যুপ তৈরি করবেন। উপকরণ: বাঁধাকপি, ফুলকপি,গাজর, পেয়াজ, কাঁচা লঙ্কা, রসুন, ডিম, অলিভ অয়েল, গোলমরিচ, নুন।রান্নার প্রণালী: প্রথমে কড়াইতে ১ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল নিন। তাতে ২টি

ক্যান্সার কোনো রোগ নয় বরং ব্যবসার ফাঁদ!

  

পিএনএস ডেস্ক: ক্যান্সার কোনো রোগ নয় বরং ব্যবসার একটি ফাঁদ! সুতরাং ক্যান্সার বলে যে রোগের কথা বলা হয় তা একটি নির্জলা মিথ্যা। ক্যান্সার হলো মূলত ভিটামিন বি ১৭ এর ঘাটতি। ঠিক যেভাবে স্কার্ভি কোনো রোগ নয় বরং ভিটামিন সি এর ঘাটতি। অথচ স্কার্ভি রোগ নিয়েও জল কম ঘোলা হয়নি।একটা সময়ে স্কার্ভি রোগ নিয়েও প্রচুর ব্যবসা করা হয়। পরে প্রমাণিত হয় স্কার্ভি কোনো রোগ নয়। ঠিক তেমনি ক্যান্সারও কোনো রোগ নয়। বরং দেহে একটি ভিটামিনের ঘাটতির কারণে এই সমস্যা দেখা দেয়।অথচ উইকিপিডিয়ায় লেখা আছে, ক্যান্সার হলো এমন

কিডনিতে পাথর? লক্ষণ বুঝবেন যেভাবে..

  

পিএনএস ডেস্ক: কঠিন পদার্থ জমা হয়ে কিডনিতে পাথর হয়। এ সমস্যা যে কারোই হতে পারে। সাধারণত কিডনির পাথরগুলো আকারে খুব ছোট হয়ে থাকে। কিডনিতে নানা কারণে পাথর হতে পারে। খনিজ পদার্থ, অম্ল ও লবণের মিশ্রণে কিডনির পাথর তৈরি হয়। প্রস্রাব ঘনিভূত হয়ে খনিজ পদার্থগুলো দানা বাঁধে এরপর সেগুলো পাথরে রূপান্তরিত হয়।কিডনির এসব পাথর আপনার জন্য ক্ষতির কারন হয়ে দাঁড়াতে পারে। তবে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। উপসর্গ বা লক্ষণগুলো জানা থাকলে নিরাময়ে সুবিধা হবে আপনার। কিডনিতে পাথর হওয়ার লক্ষণগুলো নিচে তুলে ধরা হলো।#

পেটপুরে ভাত খেয়েও স্লিম হওয়ার ৮ সহজ টিপস

  

পিএনএস ডেস্ক : ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে অনেকেই দুপুরে ভাত খাওয়াটা ছেড়ে দেন। যেটা ভেতো বাঙালিদের জন্য বেশ কষ্টকর৷ ভাত খাওয়া ছেড়ে লাভটা তো কিছু হয় না, মনটা শুধু খাই খাই করতে থাকে।ফলে অনেক এটা-সেটা হাবিজাবি খাওয়া হয়ে যায়। ফলাফল যা হওয়ার হয় ঠিক তাই হয়। ওজন আর নিয়ন্ত্রণে থাকে না। নিশ্চিন্তে দুপুরে পেটপুরে ভাত খান শুধু আমাদের টিপসগুলি মনে রাখুন৷তাহলে আপনার স্লিম থাকা কেউ আটকাতে পারবে না৷৮টি টিপস আপনার জন্য১. যেটুকু ভাত খাবেন, ঠিক সম পরিমাণ কাঁচা সবজির সালাদ খাবেন। অর্থাৎ, আপনি যদি এক কাপ

শীতে ওজন বাড়ার কারণ

  

পিএনএস ডেস্ক: শীত এলেই ওজন বেড়ে যায়। কারণ শীত মানেই জড়তা, একটু অলসতা। খাওয়া থেকে শুরু করে শরীরচর্চা সবকিছুতেই দেখা দেয় 'কেয়ারলেস' ভাব। আর তাই তো ওজনও আগের অবস্থানে থাকে না। চলুন জেনে নেই শীতে ওজন বাড়ার কারণ। শীতে সূর্যের আলো শরীরে কম লাগে। গবেষণা বলছে এটা মেদবৃদ্ধির একটি বড় কারণ। পর্যাপ্ত সূর্যের আলোর অভাবে ঘুমও বেড়ে যায়।শীতে ঘুম শুরু হয় আগে, ভাঙে দেরিতে। ওজন বাড়ার এটি একটি বড় কারণ। শীত মানেই মর্নিংওয়াক ভুলে কম্বলের ভেতর গুটিসুটি মেরে শুয়ে থাকা। কনকনে শীতে কে আর ওজন বাড়া নিয়ে চিন্তা

পালং শাকের পুষ্টি যতো

  

পিএনএস ডেস্ক: পালং আমাদের দেশে একটি পরিচিত শাক। এটি ভাজি কিংবা ঝোল রান্না করে খাওয়া যায়। পালং শাকে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ পুষ্টি যা আমাদের শরীরকে সুস্থ থাকতে সহায়তা করে। নানারকম অসুখ-বিসুখ থেকে দূরে থাকতে খাবারের তালিকায় রাখতে পারেন এই সবুজ শাকটি।প্রতি ১০০ গ্রাম পালং শাকে প্রোটিন আছে ২.০ গ্রাম, কার্বোহাইড্রেট আছে ২.৮ গ্রাম, আঁশ আছে ০.৭ গ্রাম, আয়রন ১১.২ মি. গ্রাম, ফসফরাস আছে ২০.৩ মি. গ্রাম, অ্যাসিড (নিকোটিনিক) ০.৫ মি. গ্রাম, রিবোফ্লোবিন থাকে .০৮ মি. গ্রাম, অক্সালিক অ্যাসিড থাকে ৬৫২ মি. গ্রাম,

Developed by Diligent InfoTech