কৃষি

টমেটোর কেজি ৪ টাকা

  

পিএনএস ডেস্ক : বিভিন্ন জেলা থেকে টমেটো আসার কারণে বিপাকে পড়েছেন ঠাকুরগাঁওয়ের স্থানীয় টমেটো চাষিরা। প্রথমে ৪০ টাকা কেজি দরে বাজার শুরু হলেও বর্তমানে টমেটো প্রতি কেজি ৪ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। রোববার সকালে ঠাকুরগাঁওয়ের গবিন্দনগর কাঁচা বাজরের আড়ৎ এ দেখা গেছে ২৫ কেজি টমেটো ১শ’ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। কৃষি সম্প্রসারণ অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরে জেলায় ২ হাজার হেক্টর জমিতে আগাম সবজির চাষ হয়েছিল। স্থানীয় বাজারের চাহিদা অনুযায়ী চাষিরা টমেটোর চাষ বেশি করেছেন। অন্যদিকে দেশের অন্যান্য জেলা

ডিমলায় তিস্তাসীড্ কোম্পানী ভূট্টার বাম্পার ফলনের আশায় কৃষক

  

পিএনএস, ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি : “সঠিক চাষে সঠিক ফলন এক্কর প্রতি ১৪৫/১৫০ মণ ” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে নীলফামারী ডিমলা উপজেলার কৃষকদের মাঝে তিস্তাসীড্ কোম্পানী ভূট্টার বাম্পার ফলনের সঞ্চার যোগাবে বলে মনে করেন এই উপজেলার কৃষকগণ। সড় জমিনে গিয়ে কথা হয় খালিশা চাপানী ইউনিয়নে তালতোলা মৌজার কৃষক মোঃ শফিকুল ইসলামের সাথে তিনি জানায়, এবার আমি দুই এক্কর জমিতে তিস্তাসীড্-১ ভূট্টা বপন করেছি। ভূট্টার গাছ মোটা ও সবল হয়ে উঠেছে। আল্লাহর রহমতে আশা করছি বিগত বছরের তুলনায় এবার অধিক লাভবান হব। এ ব্যাপারে

বগুড়ায় জনপ্রিয় হাইব্রিড ‘বিজলী প্লাস’জাতের মরিচ

  

পিএনএস, শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ায় কৃষকদের মাঝে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে হাইব্রিড ‘বিজলী প্লাস’ জাতের মরিচ। এই জাতের মরিচ চাষ করে লাভবান হচ্ছেন কৃষক। তাই এই জাতের মরিচ চাষে ঝুঁকে পড়েছেন তাঁরা। বাম্পার ফলন আর গুণগতমান ভালো হওয়ায় এই মরিচ চাষে তাদের আগ্রহ বাড়ছে। ইতিমধ্যে এ আর মালিক সীডস্ প্রাইভেট লিমিটেড ও বীজতলা কোম্পানির ‘বিজলী প্লাস’জাতের মরিচ দেশজুড়ে খ্যাতি অর্জন করায় চাহিদাও বেড়েছে। উচ্চ ফলনশীল এই জাতের মরিচ চাষ করে চমক দেখিয়েছেন কৃষক জাহিদুল ইসলাম। তিনি এবছর তিন বিঘা জমিতে ‘বিজলী প্লাস’মরিচ

তিস্তার বুকে বাদামের বাম্পার ফলন

  

পিএনএস, সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি : তিস্তার বুকে ধূ-ধূ বালুচরে চলতি মৌসুমে বাদামের বাম্পার ফলন দেখা দিয়েছে। বাদামসহ নানাবিধ ফসলে ভরে উঠেছে তিস্তার চরাঞ্চল। জমি জিরাত খুঁয়ে যাওয়া পরিবারগুলো পুর্নরায় চরে ফিরে এসে চাষাবাদে ঝুকে পড়েছে। দীর্ঘদিন পর নদীগর্ভে বিলিন হয়ে যাওয়া জমির ফসল ঘরে তুলতে পেরে খুশি কৃষকরা। গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার তারাপুর, বেলকা, হরিপুর, চন্ডিপুর, শ্রীপুর ও কাপাসিয়া ইউনিয়নের উপর দিয়ে প্রবাহিত রাক্ষুসি তিস্তা নদী এখন আবাদি জমিতে পরিণত হয়েছে। চরাঞ্চলের হাজারও একর

তানোরে সরিষার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা, কৃষকের মুখে হাসি

  

পিএনএস, তানোর (রাজশাহী) সংবাদদাতা : জেলার তানোরে এবার উচ্চ ফলনশীল হাইব্রিড জাতের বারি-১৪ ও বারি-১৫ সরিষার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনায় কৃষকের মুখে ফুটেছে হাসি। স্বল্প খরচে অল্প সময়ে উৎপাদন বেশি হওয়ায় দিন দিন বাড়ছে এ সরিষার আবাদ। বর্তমানে সরিষা ক্ষেতগুলো হলুদ আর সাদা ফুলে ভরে উঠেছে। এ সুযোগে সরিষাফুল থেকে মধু আহরণে ব্যস্ত মৌমাছির দল। আর সেই সরিষার ক্ষেতের পাশে শতাধিক মৌমাছির বক্স বসিয়ে মধু সংগ্রহ করছেন মৌচাষিরা।কৃষি বিভাগের পরামর্শে কম খরচে অধিক লাভবান হওয়ায় কৃষকরা সরিষা আবাদে ঝুঁকে পড়েছেন। ফলে এ

মাদারীপুরে হলুদে ছেয়ে গেছে ফসলের মাঠ

  

পিএনএস ডেস্ক : মাদারীপুর জুড়ে এখন সরিষা হলুদ ফুলে ঢেকে গেছে ফসলের মাঠ। চারদিকে শুধু সরিষা ফুলের মৌ মৌ সুবাস ভেসে আসছে। সরিষার এমন আবাদ দেখে কৃষকদের মুখে হাসি ফুটে উঠেছে। কৃষকরা বলছেন, বাজারে ভালো দাম পেলে গত মৌসুমে ধানের দাম না পাওয়ার ক্ষতি এবার সরিষা দিয়ে পুষিয়ে নিতে পারবেন। সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, মাদারীপুরের অধিকাংশ ফসলের মাঠে এবছর প্রচুর পরিমাণে সরিষা আবাদ করা হয়েছে। যেদিকে চোখ যায় শুধু হলুদ রংয়ের সরিষার ক্ষেত চোখে পড়ে। তাকালেই যেন সরিষা ফুলের সৌন্দর্যে চোখ জুড়িয়ে যায়। মাদারীপুর সদর

কৃষি ও কৃষক গুরুত্বসহ অগ্রাধিকার পাওয়া সময়ের দাবি

  

পিএনএস (মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম প্রধান) : কৃষক কত কষ্ট করে ফসল আবাদ করেন। সে ফসল বিক্রি করে তারা লাভবান হবেন- এ আশায়। কিন্তু সে আশায় গুড়ে বালি পড়ে প্রায়ই। প্রাকৃতিক দুর্যোগ আর পোকারকবলে পড়ে ফসলহানি ঘটে। এতে কৃষকের মাথায় হাত পড়ে। খরচের অর্থ নিয়ে তারা বিপাকে পড়েন। কিন্ত এ কষ্ট লাঘবে কাঙ্ক্ষিত উদ্যোগ লক্ষ করা যাচ্ছে না।লাভের আশায় যে ফসল তারা উৎপাদন করেন, সে ফসলের ন্যায্য মূল্য না পেয়ে তারা হতাশ ও দিশেহারা। তারা সঠিক মূল্য না পেয়ে প্রায়ই দুর্ভোগে পড়েন। নানা দুর্বিপাকে পড়ে কৃষক ফতুর হন প্রায়ই।

মহাদেবপুরে বোরো ধানের চারা উৎপাদনে ব্যস্ত কৃষক

  

পিএনএস, নওগাঁ প্রতিনিধি : বরেন্দ্র অঞ্চল খ্যাত নওগাঁর অন্যতম খাদ্য ভান্ডার মহাদেবপুর উপজেলার সর্বত্র বোরো মৌসুমে আদর্শ বীজতলায় ধানের চারা উৎপাদনে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন কৃষকরা। কৃষি নির্ভর বাংলাদেশের সার্বিক কৃষি উন্নয়ন এবং খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনে বাস্তবমুখী নানা পদক্ষেপ নিলেও নানা সময় বীজ ও চারা সংকটের কারণে কৃষকরা নানা সমস্যায় পড়েন। এ সমস্যা সমাধানের জন্য কৃষি ব্যবস্থায় যুক্ত হয়েছে আদর্শ (কমিউনিটি) বীজতলা।আদর্শ বীজতলায় উৎপাদিত ধানের চারা যেকোন বৈরী আবহাওয়া মোকাবিলা করতে পারে। সুস্থ

বেগুনের কেজি দেড় টাকা!

  

পিএনএস ডেস্ক : ‘লাভের আশায় এক লাক টেকা খরচ কইরা ৪ বিগা জমিত বেগুন লাগাইছিলাম। লাভ দূরে থাইক, এহন পন্ত মাত্র ৩০ হাজার টেকার বেগুন বেচবার পাইছি। এহন বেগুনের যে দাম তাতে বেগুন তুলার খরচও ওঠে না। তাই গরুর খাওনের জন্য বেগুন খেত ছাইড়া দিছি।’হতাশ কণ্ঠে কথাগুলো বললেন জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার শাহাজাতপুর খানপাড়া গ্রামের বেগুনচাষি রেজা খান। শুধু রেজা খান নয়, উপজেলার অন্যান্য কৃষকেরও একই অবস্থা।প্রতাব ঝগড়ি খানপাড়া গ্রামের কৃষক বেলাল খান ৩০ হাজার টাকা খরচ করে দেড় বিঘা জমিতে বেগুন চাষ করেন। বিক্রি

হায় রে কৃষক, তোমার এ কী হাল !

  

পিএনএস (মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম প্রধান) : হায় রে কৃষক। তোমার এ কী হাল।যাদের উদয়-অস্ত রোদে পোড়া সামাহীন শ্রম-ঘামের বদৌলতে আমাদের পেটে অন্নের জোগান হয়, সে প্রাণের কৃষককে গ্রেফতার আতঙ্কে ভুগতে হচ্ছে। ফসল তোলার আনন্দের বদলে গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার কৃষকরা ভুগছেন গ্রেফতার আতঙ্কে। এমনটা তো হবার কথা নয়।খবরে প্রকাশ, সাদুল্যাপুর উপজেলায় আমন মৌসুমে ধান কাটা-মাড়াইয়ের শুরুতেই বকেয়া ঋণের টাকা পরিশোধের জন্য কৃষকদের চাপ দিচ্ছে ঋণদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো। এরই মধ্যে এ ঋণদাতা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে উপজেলার

Developed by Diligent InfoTech